বুধবারের ব্রিগেড ছিল রঙিন৷ নানা রঙে নানাভাবে সেজে এসেছিলেন বিজেপি সমর্থকরা৷ তাছাড়া আলুমিনিয়ামের হ্যাঙ্গার ও জার্মান সিলভারের ছাওনি ব্রিগেডকে পাল্টে দিয়েছে৷

এদিনের ব্রিগেডে এসেছিলেন পূর্ব মেদিনীপুর থেকে এসেছিলেন শশধর৷ তার মাথায় পদ্মফুল,হাতে দলীয় পতাকা,গায়ে গেরুয়া পোশাক৷ ব্রিগেডের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত ঘুরে বেড়ালেন৷

আরেক জনতো তির ধনুক হাতে রাম সেজে হাজির ব্রিগেডে৷ মুখে জয়শ্রীরাম শ্লোগান৷ পিছন পিছন ছুটছে রামের অগনিত ভক্ত৷ আরও এক বিজেপি সমর্থকের বুকে,গালে,কপালে লেখা মোদি, শরীরে আকা পদ্মফুল৷ হাতে দলীয় পতাকা৷

অন্যজনকে দেখা গেল ছাউনির বাইরে প্রখর রৌদ্রে গেরুয়া পোশাকে কপালে ত্রিশূল এঁকে ফেট্টি মাথায় দাঁড়িয়ে এক বিজেপি সমর্থক৷

এছাড়া ধামসা মাদল নিয়ে ব্রিগেডে হাজির ছিলেন কিছু বিজেপি কর্মী,সমর্থক৷ আবার বিজেপির স্বেচ্ছাসেবকদের জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছিল বিশেষ গেঞ্জি৷ টি শার্টের পিছনে লেখা ছিল কেন্দ্রে আবার মোদি সরকার আর বুকে লেখা আমিও চৌকিদার৷ জনসভায় কর্মী সমর্থকদের হাতে হাতে ছিল মোদির কাটআউট,মুখে মুখোশ৷

ব্রিগেডে তৈরি হয়েছে আলুমিনিয়ামের হ্যাঙ্গার৷ সমর্থকদের রোদ থেকে বাঁচাতে ছিল জার্মান সিলভারের ছাওনি৷ তার নিচে বসার সু-বন্দোবস্ত৷ এতদিন মানুষ ব্রিগেডকে যে চেহারায় দেখেছে এবার সেই ব্রিগেডকেই দেখলো অন্যরূপে৷ প্রধানমন্ত্রীর এই জনসভায় ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের দিকে ছিল পাশাপাশি তিনটি মঞ্চ৷ মূল মঞ্চটি আকারে বড়। ওই মঞ্চ থেকেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তার বক্তব্য রাখেন৷ এছাড়া বিজেপি শীর্ষ স্থানীয় নেতা ও রাজ্যের বিজেপি প্রার্থীরা৷

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.