ইন্দাস নদীর উপর দীর্ঘতম ঝুলন্ত সেতু (সাসপনশন ব্রিজ) বানিয়ে নজির গড়ল ভারতীয় সেনা। লাদাখের প্রত্যন্ত অঞ্চলে যোগাযোগ ব্যবস্থা দৃঢ় করতে তৈরি করা হল এই ‘মৈত্রী ব্রিজ।’

ভারতীয় সেনা তৈরি করেছে ২৬০ ফুট লম্বা এই সেতু। ইতিমধ্যেই সেটি খুলে দেওয়া হয়েছে সাধারণ মানুষের জন্য। লাদাখ এলাকার প্রত্যন্ত গ্রামের বাসিন্দাদের সাহায্যের কথা ভেবেই তৈরি হয়েছে এই সেতু। এর ফলে উপকৃত হবে চোগলামসার, স্টোক ও চুচোট গ্রামের বাসিন্দাদের। লাদাখের মোট জনসংখ্যার একটা বড় অংশ এইসব অঞ্চলে বসবাস করে।

সোমবার ওই সেতু খুলে দেওয়া হয়েছে। একাধিক উচ্চপদস্থ সেনা অফিসারের উপস্থিতিতে এই সেতুর উদ্বোধন করা হয়।

এই সেতু আরও একবার প্রমাণ করে দিয়েছে সেনাবাহিনীর ক্ষমতা। এই সেতু নির্মাণে সেনাবাহিনী যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে, তা নজিরবিহীন। ‘Fire & Fury Corps’ -এর অধীনে থাকা ‘সাহস অউর যোগ্যতা’ রেজিমেন্টের সদস্যরা তৈরি করেছেন এই ব্রিজ। মাত্র ৪০ দিনে সম্পূর্ণ সেতু তৈরি করা সম্ভব হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে সেতু নির্মাণের ৫০০ টন সামগ্রী আনা হয়েছে।

সীমান্ত সংলগ্ন ওই সব বরফাবৃত এলাকায় যাতে সব ঋতুতেই সেতু ব্যবহার করা সম্ভব হয়, সেই বিষয়ে জোর দেয় মোদী সরকার। আর তার জেরেই একদিকে যেমন লাদাখে সেই সেতু বানানো হল, এর আগে গত বছর এমনই একটি সেতু বানানো হয় মানালি থেকে লাদাখ পর্যন্ত।

এছাড়া গত বছর এশিয়ার দীর্ঘতম জোজিলা টানেলের শিলান্যাস করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কাশ্মীরের জন্য সরকার যে ২৫০০০ কোটি টাকার প্রজেক্ট বরাদ্দ করেছে, সেটার অংশ হিসেবেই এই নির্মাণগুলি হচ্ছে।

লেহ-লাদাখ ভৌগলিকভাবে আত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। গত বছর এই অঞ্চলে বর্ডার রোড অর্গানাইজেশ তৈরি করেছিল ৩৫ মিটার লম্বা চামেসান ব্রিজ। ‘হিমাঙ্ক’ প্রজেক্টের অধীনে হয় সেই কাজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.