কবিগুরু গানেই জ্ঞানচক্ষুর উন্মোচন, আর রবিগানের সুর বুকে নিয়েই সুরলোকে পাড়ি দিলেন বিখ্যাত রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী (Rabindrasangeet Singer) পূর্বা দাম (Purba Dam)। প্রয়াণকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, তিনি অসুস্থ ছিলেন, চিকিৎসাও চলছিল। চিকিৎসকদের সমস্ত প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে শনিবার সকালে কলকাতায় তাঁর মৃত্যু হয়। প্রয়াত রবীন্দ্রসংগীতRead More →

পর্ব ৩ মনে করে যেন বিদেশ ঘুরে মাকে নিয়ে যাচ্ছি অনেক দূরে। তুমি যাচ্ছ পালকিতে মা চড়ে দরজা দুটো একটুকু ফাঁক করে, আমি যাচ্ছি রাঙা ঘােড়ার পরে টগবগিয়ে তােমার পাশে পাশে…. পাল্কী বা শিবিকা…তার ধরন গড়ন অনুসারে নানা নাম ছিল। ক্ষেত্র বিশেষে চেহারার কিছু রদবদল হতো। সেসব পাল্কী বা শিবিকাRead More →

পর্ব ২ কুকুর গুলো শুঁকছে ধূলো, ধুঁকছে কেহ ক্লান্ত দেহ। গঙ্গা ফড়িং লাফিয়ে চলে; বাঁধের দিকে সূর্য্য ঢলে। পাল্কী চলে রে…. প্রাচীন যান শিবিকা বা পাল্কীর কৌলিন্য ক্রমে বৃদ্ধি পাচ্ছিল। অভিজাত থেকে নামী, মহারাজা হতে সরকারী কর্মী সকলের কাছে পাল্কী একটি অভিজাত বিষয়বস্তু হয়ে উঠছিল। বড়লোকের হাতি পোষা এবং চারRead More →

তৃতীয় পর্ব ছৌ নৃত্য আমাদের বঙ্গের হৃদয় জুড়ে অবস্থান করছে। সেই নৃত্য শিল্পের হৃদয় জুড়ে অবস্থান করছেন মা দুর্গা। তাই তো ছৌ নাচের প্রায় সকল পালায় মা দুর্গা থাকেন সর্বব্যাপী হিসাবে। পূর্ব পর্বগুলিতে আমি ছৌ নৃত্যের দুর্গা পালার – গনেশ বন্দনা পালা , শুম্ভ – নিশুম্ভ বধ পালা , মহিষাসুরRead More →

“আশ্বিনের শারদ প্রাতে বেজে উঠেছে আলোকমঞ্জির, ধরনীর বহিরাকাশে অন্তরিত মেঘমালা, প্রকৃতির অন্তরাকাশে জাগরিত জ্যোতির্ময়ী জগতমাতার আগমন বার্তা।” বৃহস্পতিবার সকালে প্রতিটি বাঙালীর ঘরে ঘরে বেজে উঠেছে এই স্বর। প্রতি বছর এই স্বর কানে পৌঁছতেই বাঙালীর মনে কয়েকশো প্রজাপতি উড়তে শুরু করে। গোটা বাংলা সেজে ওঠে রঙিন আলোয়। কিন্তু এবার কোথায় কী!Read More →

দুর্গাপুজো এলে মন ছোটোবেলামুখী হয়। প্রতিবছর পুজো সঙ্গে করে নিয়ে আসে ছোটোবেলার স্মৃতি। মন কেমন করা আঁজলা ভরা একরাশ শিউলির গন্ধের মতো— পুজো মানেই ছোটোবেলা। ছাতিম ফুলের গন্ধমাখা সন্ধ্যের ভেজা বাতাসে যখন একটু হিমেল ছোঁয়া, তখন কলকাতার ঝলমলে দুর্গাপ্রতিমার ভিড়ের মধ্য দিয়ে হাঁটতে হাঁটতেও মনের মধ্যে পদ্মপাতায় বারিবিন্দুর মত টলটলRead More →

দ্বিতীয় পর্ব ছৌ নৃত্যে যেসব পালায় মা দুর্গার সাক্ষাৎ পাওয়া যায় তার মধ্যে অন্যতম হল ” শুম্ভু – নিশুম্ভু ” বধ পালায়। পালার কথা পুরাণের হলেও এখানে পুরাণকে আনুপূর্বিক অনুসরণ করা হয় নি। পুরাণের কাহিনীর মূল কাঠামোটিকে যথাসম্ভব অক্ষুন্ন রেখে পালার কাহিনী বিন্যাস করা হয়েছে। কিন্তু, তাও সমাজের লোকচিন্তার প্রভাবRead More →

প্রথম পর্ব বিসৃষ্টৌ সৃষ্টিরূপা ত্বং স্থিতিরূপা চ পালনে। তথা সংহৃতিরূপান্তে জগতো’স্য জগন্ময়ে । মহাবিদ্যা মহামায়া মহামেধা মহাস্মৃতিঃ। মহামোহা চ ভবতি মহাদেবী মহেশ্বরী।। প্রকৃতিস্ত্বং চ সর্বস্ব গুণাত্রয়বিভাবিনী। কালরাত্রির্মহারাত্রির্মোহারাত্রিশ্চ দারূণা ।। তুমি ধারণ করে আছ বিশ্বকে, তুমি-ই জগৎ সৃষ্টি করেছ। তুমি পালন কর সকলকে, সকলের অন্তিমেও তুমি-ই আছ।। সৃষ্টিরূপে তুমি ব্যপ্ত চরাচরে,Read More →

পর্ব ১ দিব্যাং ভদ্রাসনযুতাং শিবিকাং স্যন্দনোপমাম্। পক্ষিকর্মভিরাচিত্রাং দ্রুম কর্মবিভূষিতাম্।।ভদ্রাসনযুক্ত , মনোরম রথের তুল্য শিবিকা আনীত হয়েছিল। সেটি পক্ষীর চিত্রের দ্বারা চিত্রিত এবং বৃক্ষ প্রতিকর্তির দ্বারা শোভিত ছিল।  হ্যাঁ , শিবিকা …রামায়ণে উল্লিখিত শিবিকা। আমাদের সুপ্রাচীন কালে ঘোড়া, ঘোড়ায় টানা রথ , গোশকট, ভারবাহী পশুদ্বারা চালিত শকটাদি ব্যতীত প্রাত্যহিক জীবনে নিকটRead More →

বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় (১২ই সেপ্টেম্বর, ১৮৯৪ – ১লা নভেম্বর, ১৯৫০) ছিলেন জনপ্রিয় বাঙালি কথাসাহিত্যিক। তিনি মূলত উপন্যাস ও ছোটগল্প লিখে খ্যাতি অর্জন করেন। পথের পাঁচালী ও অপরাজিত তাঁর সবচেয়ে বেশি পরিচিত উপন্যাস। অন্যান্য উপন্যাসের মধ্যে আরণ্যক, আদর্শ হিন্দু হোটেল, ইছামতী ও অশনি সংকেত বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। উপন্যাসের পাশাপাশি বিভূতিভূষণ প্রায় ২০টি গল্পগ্রন্থ,Read More →