টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে ফেরাওয়েল ম্যাচ খেলতে রাজি হননি কোহলি, দাবি BCCI সূত্রের


বিরাট কোহলি চাইলে, ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে বেঙ্গালুরুতে তাঁর ১০০তম টেস্ট উদযাপন করার পর, ধুমধাম করে এই ফর্ম্যাটের নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়াতে পারতেন। বেঙ্গালুুরু আবার কোহলির আইপিএল দলের ঘরের মাঠ। সূত্রের খবর, বিসিসিআই-এর একজন সিনিয়র আধিকারিক শুক্রবার ফোনে কোহলিকে অধিনায়ক হিসাবে বিদায়ী ম্যাচ এবং বেঙ্গালুরুতে একটি উৎসবের প্রস্তাব দিয়েছিলেন, যখন কোহলি পদত্যাগের সিদ্ধান্ত জানিয়েছিলেন। সেটা অবশ্য প্রত্যাখ্যান করেন কোহলি। তিনি জানিয়ে দেন, ‘একটি ম্যাচে কোনও পার্থক্য হবে না। আমি এমনটা নই।’

ভারতের অধিনায়কদের মধ্যে কোহলি টেস্টে সফলতম। তবু টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে তাঁর শেষটা দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ম্যাচে হার দিয়ে হল। এর আগে মহেন্দ্র সিং ধোনি ৯০ ম্যাচ খেলার পর, ২০১৪ মেলবোর্ন টেস্ট ড্র হওয়ার পরে এই ফর্ম্যাট থেকেই অবসর নিয়েছিলেন। স্বাভাবিক ভাবেই তার পর থেকে ধোনি টেস্ট দলের অধিনায়কও ছিলেন না। সেই সময়ে টেস্ট দলের ব্যাটন কোহলির হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল।ট্রেন্ডিং স্টোরিজ

শনিবারের টুইটে পদত্যাগের ঘোষণা করার সময়ে কোহলি যে দু’জনকে ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন ধোনি তাঁদের একজন। তিনি লিখেছিলেন, ‘এমএস ধোনিকে অনেক ধন্যবাদ যিনি আমাকে একজন ক্যাপ্টেন হিসাবে বিশ্বাস করেছিলেন এবং আমাকে একজন সক্ষম ব্যক্তি হিসাবে দেখেছিলেন, যে ভারতীয় ক্রিকেটকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে।’ 

কোহলি নিজের সিদ্ধান্ত প্রকাশ্যে ঘোষণা করার আগে দলের প্রধান কোচ রাহুল দ্রাবিড়, এবং তাঁর সতীর্থদের এই কথা জানান। তার পরে বিসিসিআই কর্তাদের সাথে কথা বলেন। যদিও বিসিসিআই তাঁকে আরও একটি সিরিজের দায়িত্ব নিতে বলেছিলেন। কিন্তু  কোহলি নাকি ব্যাটিংয়ে ফোকাস করার জন্য অধিনায়ক হিসেবে চাপ নিতে আর রাজি হননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.