এবার মায়ের সঙ্গে কেন্দ্র বদলেছে বরুণ গান্ধীর। পিলভিট নয়, সুলতানপুর থেকে ভোটে লড়ছেন তিনি। যদিও তাঁর দল পরিবর্তনের কথা শোনা গিয়েছিল, তবে ফের একবার সেই দাবি উড়িয়ে দিলেন তিনি।

প্রিয়াঙ্কা গান্ধী সক্রিয়ভাবে রাজনীতিতে আসার পর থেকে শোনা যাচ্ছিল যে, বরুণ গান্ধী হয়ত যোগ দেবেন কংগ্রেসে। সম্প্রতি ‘টাইমস অফ ইন্ডিয়া’-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বরুণ গান্ধী জানিয়েছেন যে, যেদিন বিজেপি ছাড়বেন সেটাই হবে রাজনীতিতে তাঁর শেষ দিন।

তিনি জানিয়েছেন, বছর ১৫ আগে তিনি বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলে। সেদিনই তিনি বলেছিলেন, যে বিজেপি ছাড়লে সেটাই হবে তাঁর জীবনের রাজনীতির শেষ দিন। আজও সেটাই বিশ্বাস করেন তিনি।-

কেন্দ্র বদলের প্রসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, যে দুটি কেন্দ্রই তাঁদের পরিবারের পূর্ব পরিচিত। তাই মায়ের কেন্দ্র থেকে লড়তে তাঁর কোনও অসুবিধা নেই।

এদিকে, উত্তরপ্রদেশে এসপি-বিএসপি জোট নিয়ে মোটেই ভাবিত নন বরুণ গান্ধী। তিন বলেন, ৮০ শতাংশ মানুষ আশার পক্ষেই ভোট দেবেন। তিন বলেন, এসপি-বিএসপি জাতপাতের রাজনীতি ছকতে শুরু করেছে, তারা মানুষের আসল ইচ্ছা বুঝতে ব্যর্থ।

তিনি রাহুল বা প্রিয়াঙ্কার বিরুদ্ধে প্রচারে কথা বলবেন কিনা, সেই প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে বরুণ গান্ধী বলেন, ‘আমার দল যা ঠিক করবে, সেটাই করব।’

কয়েকদিন আগে বরুণ গান্ধী এক জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, নরেন্দ্র মোদী দেশকে যে সম্মান এনে দিয়েছেন, তা আর কোনও প্রধানমন্ত্রী পারেননি। পিলভিটে জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে একথা বলেন তিনি। এমনকি তিনি এও উল্লেখ করেন যে তাঁর পরিবার থেকে যাঁরা প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন, তাঁদেরও এই কৃতিত্ব নেই।

দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর নাতি ও রাজীব গান্ধীর ভাইপো বরুন গান্ধী। তিনি বলেন, ‘সত্যি বলতে, আমার পরিবার থেকেও অনেকে প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন, তবে এইভাবে দেশকে সম্মান এনে দেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.