অবসরপ্রাপ্ত বিচারক, প্রাক্তন আমলা, সেনা প্রবীণরা নূপুর শর্মা সম্পর্কে মন্তব্যের জন্য সুপ্রিম কোর্টের বিচারকদের প্রতি আপত্তি জানিয়ে খোলা চিঠি দিলেন

১৫ জন অবসরপ্রাপ্ত বিচারক, ৭৭ জন প্রাক্তন আমলা এবং ২৫ জন সেনা প্রবীণ দ্বারা স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে, নুপুর শর্মা সম্পর্কে “দুর্ভাগ্যজনক এবং নজিরবিহীন মন্তব্য” এবং বিচারের আগে তাকে দোষী ঘোষণা করার জন্য সুপ্রিম কোর্টের বিচারক সূর্যকান্ত এবং পারদিওয়ালাকে নিন্দা করেছেন।
চিঠিটি দুই বিচারককে তাদের “লক্ষ্মণ রেখা” অর্থাৎ সীমা লঙ্ঘন করার জন্য তিরস্কার ও প্রতিবাদ করেই লেখা হয়েছে। উক্ত বিচারপতিদের আইন বিরুদ্ধ এবং ব্যক্তিগত বক্তব্যের কারণে দেশে এবং বাইরে শোকওয়েভ সৃষ্টি করেছে এবং স্বাক্ষরকারীদের একটি খোলা বিবৃতি দিতে বাধ্য করেছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে যে পিটিশনে উত্থাপিত ইস্যুটির সাথে দুই বিচারকের করা পর্যবেক্ষণের আইনশাস্ত্রগতভাবে কোনও সম্পর্ক নেই এবং এটি “বিচারের ব্যবস্থার সমস্ত সীমা” লঙ্ঘন করেছে।

এসসি বেঞ্চ যে মন্তব্য করেছে যে নূপুর শর্মা “দেশে যা ঘটছে তার জন্য এককভাবে দায়ী” এর কোনও যুক্তি নেই। চিঠিতে বলা হয়েছে যে এই ধরনের পর্যবেক্ষণ করে, আদালত কার্যত “প্রকাশ্য দিনের আলোতে সবচেয়ে জঘন্যতম অপরাধ” থেকে অব্যাহতি দিয়েছে এবং উদয়পুরে সংঘটিত জঘন্য অপরাধ করার পরে দেশবাসীর প্রতিবাদের আবেগকে নষ্ট করে দিয়েছে।


চিঠিতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে শুধুমাত্র মাননীয় সুপ্রিম কোর্টের অন্য রাজ্যে নথিভুক্ত এফআইআর/মামলা স্থানান্তর করার এখতিয়ার রয়েছে। তবুও, দুই বিচারক শর্মার আবেদনটি নিতে এজলাসে অস্বীকার করেন ও এটি প্রত্যাহার করতে বাধ্য করেন এবং উপযুক্ত ফোরামে (হাইকোর্ট) যাওয়ার পরামর্শ দেন। চিঠিতে লেখা হয়েছে, “এই ধরনের একটি পদ্ধতি কোন সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য নয় এবং দেশের সর্বোচ্চ আদালতের পবিত্রতা ও সম্মানকে প্রভাবিত করে।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.