এ বড় কঠিন সময় আজ। কোনো সমাজকে ধ্বংস করতে গেলে আক্রমণকারী সে সমাজের সৃষ্টি কৃষ্টির ওপরেই প্রথম আঘাত হানে, যাতে সে সমাজকে ভেতর থেকে অন্তঃসারশূন্য করে তোলা যায়। বাঙ্গালীর সৃষ্টি কৃষ্টির লালন পালনে অন্যতম মাধ্যম রবীন্দ্রচর্চা। আর তাই সেখানেই নেমে এসেছে আঘাত। সাংস্কৃতিক সন্ত্রাসবাদী আঘাতে বিদীর্ণ হয়েছে রবীন্দ্রভারতী থেকে গৌড়বঙ্গRead More →

পর্ব_১ সব লেখা লুপ্ত হয়, বারম্বার লিখিবার তরে নূতন কালের বর্ণে। জীর্ণ তোর অক্ষরে অক্ষরে কেন পট রেখেছিস পূর্ণ করি। হয়েছে সময় নবীনের তুলিকারে পথ ছেড়ে দিতে। হোক লয় সমাপ্তির রেখাদুর্গ। নব লেখা আসি দর্পভরে তার ভগ্নস্তূপরাশি বিকীর্ণ করিয়া দূরান্তরে উন্মুক্ত করুক পথ, স্থাবরের সীমা করি জয়, নবীনের রথযাত্রা লাগি।Read More →

ভারতীয় মহাকাব্য যে ভারতের ইতিহাস, তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন রবীন্দ্রনাথ। “রামায়ণ-মহাভারতকে কেবলমাত্র মহাকাব্য বলিলে চলিবে না, তাহা ইতিহাসও বটে। ঘটনাবলীর ইতিহাস নহে; কারণ সেরূপ ইতিহাস সময় বিশেষকে অবলম্বন করিয়া থাকে, রামায়ণ-মহাভারত ভারতবর্ষের চিরকালের ইতিহাস।” মহাভারতের ঐতিহাসিকতা নিয়ে বিপুল গবেষণা করেছিলেন বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়; তাঁর ‘কৃষ্ণচরিত্র’ গ্রন্থে এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা আছে।Read More →

রামায়ণ অর্থাৎ শ্রীরামচন্দ্রের কাহিনী। সেই কাহিনী গ্রন্থে অর্থাৎ গল্পের বইতে দর্শন? আসলে মহাভারতের যুদ্ধের পরে কলিযুগের আরম্ভে ঋষিরা মানুষের মেধা এবং ধর্মের প্রতি মানুষের অনুরক্তির হ্রাসের কথা চিন্তা করে সমস্ত তত্ত্ব ও দর্শনকে সর্বসাধারণের মধ্যে প্রচার করার উদ্দেশ্যে জীবনের গভীর তত্ত্বগুলিকে কাহিনীর আকারে প্রকাশ করার পরিকল্পনা করেন। এই মহান্ জ্ঞানসত্রRead More →

সামনে থেকে পারদ দেখেছো কখনোচকচকে চোখে আলোতে লুকোনো কিছু অজানা কাব্য।না হলে ঘুমিয়ে পরে ঝাঁসির রানী অন্তরে ,ঘুম ভাঙে হুঙ্কার দেয়হর হর মহাদেব।কথা বলবো না ,উত্তর দেব নাআসলে সব কথা বলি নি কখনো আমি নিজের কাছে। তাঁর ডাক নাম মানু, পিতার নিকট আদরের ছাবিলি , ভালো নাম মনিকর্ণিকা (Monikarnika)। 19Read More →

এ মন্দির-বৃন্দ হেথা কে নির্মিল কবে ? কোন জন ? কোন কালে? জিজ্ঞাসিব কারে? কহ মোরে তুমি কল কল রবে, ভুলে যদি, কল্লোলিনি, না থাকলো তারে। এ দেউল-বর্গ গাঁথি উৎসর্গিল যবে সে জন ,ভাবিল কি সে, মাতি অহঙ্কারে, থাকিবে এ কীর্তি তার চিরদিন ভাবি,- দীপরূপে আলো করি বিস্মৃত আঁধারে ?Read More →

কথায় বলা হয় যে,সময় ও স্রোত কারুর জন্য অপেক্ষা করেনা।কিন্তু জাতীয় জীবনে কোনো কোনো তারিখের গুরুত্ব ইতিহাসে অপরিসীম।১০-ই মে এমনই একটি তারিখ যার সাথে আধুনিক ভারতের ইতিহাসের গভীর সম্পর্ক জড়িয়ে রয়েছে। এই দিনটি ভারতবাসীকে উদ্বুদ্ধ করে অত্যাচারি ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদী ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির (East India Company) বিরুদ্ধে সশস্ত্র বিদ্রোহ করার।সেদিন সশস্ত্রRead More →

“ক্ষিতি জল পাবক গগন সমীরপঞ্চ রচিত অতি অধম শরীর।।” বিজ্ঞান হোক কিংবা শাস্ত্র, উভয় ক্ষেত্রেই আমরা দেখি পরিবেশের অন্যতম গঠনগত উপাদান জল। জলেই প্রথম জীবনের উৎপত্তি ঘটেছিল আর তাই বৈজ্ঞানিক গবেষণায় কোনো স্থানে প্রাণের অস্তিত্ব অনুসন্ধানে সর্বপ্রথম লক্ষনীয় হয় জলের উপস্থিতি। আমরা সকলেই জানি যে পৃথিবীর তিন চতুর্থাংশ স্থান জুড়েRead More →

স্বামী বিবেকানন্দ বলছিলেন আপাত দৃষ্টিতে অলৌকিকতা ও অবিশ্বাস্য ঘটনাবলির মোড়কে আবৃত্ত থাকলেও পুরাণের চরিত্রগুলি সত্য, ন্যায়, নীতি, দানব থেকে দেবতা হয়ে ওঠার মতো শ্রেষ্ঠত্বের সাধনা ও মূল্যবোধের মতো আদর্শের মণিমুক্তো খচিত। শাশ্বত সনাতন এই সমস্ত আদর্শ যুগে যুগে মানব সভ্যতাকে পথ প্রদর্শন করে এসেছে। দেবর্ষি নারদ বাস্তবে ছিলেন কি ছিলেনRead More →

‘এজ অব ইনফরমেশন’-এর যুগে বসে এসব ভাবাই যায় না। আমেরিকা ইরাকের ওপর পেট্রিয়ট মিশাইল বর্ষণ করছে, আর ঘরে বসে ছোট পর্দায় তা সরাসরি যখন দেখছি, তখন বাসুদেব অগ্রজ বলরাম সামান্য দূরে থেকেও কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের খবরাখবর পাননি—এসব কল্পনা করতেও কষ্ট হয়। যুবক দেবতারা দময়ন্তীর স্বয়ংবর সভার সামান্যতম সংবাদও পাননি। কপিলমুনির অভিশাপেRead More →