প্রথম পর্ব ধরাতলে                  চঞ্চলতা সব-আগে নেমেছিল জলে।                        সবার প্রথম ধ্বনি উঠেছিল জেগে                                      Read More →

দ্বিতীয় পর্ব যক্ষের বিরহ চলে অবিশ্রাম অলকার পথে           পবনের ধৈর্যহীন রথে বর্ষাবাষ্প-ব্যাকুলিত দিগন্তে ইঙ্গিত-আমন্ত্রণে           গিরি হতে গিরিশীর্ষে, বন হতে বনে। সমুৎসুক বলাকার ডানার আনন্দ-চঞ্চলতা তারি সাথে উড়ে চলে বিরহীর আগ্রহ-বারতা           চিরদূর স্বর্গপুরে, ছায়াচ্ছন্ন বাদলের বক্ষোদীর্ণRead More →

প্রথম পর্ব সে অনেক কাল আগের কথা। কত কাল আগে ? সেই তখন মগধ ষোড়শ মহাজন পদের এক অন্যতম শক্তিশালী মহাজন পদ ছিল। বর্তমানের বিহারের পাটনা, গয়া আর বাংলার কিছু অংশ নিয়ে গঠিত ছিল মগধ। রাজগৃহ ছিল মগধের রাজধানী। পরে অবশ্য পাটলিপুত্র হয় মগধের রাজধানী। শোন আর ভাগীরথীর মিলন স্থলেRead More →

কল্যাণ গৌতম। ১৯৩৪ সালের ৮ ই আগষ্ট মাত্র ৩৩ বছর বয়সে ভারতবর্ষের সর্বাপ্রেক্ষা বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য পদে আসীন হলেন শ্যামাপ্রসাদ। পিতাপুত্র কোনো একটি ঐতিহ্যবাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রসরতাকে প্রবলগতি-সম্পন্ন করেছেন এমন উদাহরণ সম্ভবত একটিই — উপাচার্য হিসাবে স্যার আশুতোষ মুখার্জী এবং তাঁর উত্তরাধিকারী ড. শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী৷ আশুতোষের প্রয়াণের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনে উৎকর্ষতারRead More →

সম্পাদকীয় প্রচ্ছদ নিবন্ধ মোহিত রায় শ্রীপর্ণা বন্দ্যোপাধ্যায় গল্প সিদ্ধার্থ সিংহ ……  আগাম ইন্দ্রাণী সমাদ্দার……  ভয় দেবদাস কুণ্ডু ……. অলীক আনন্দ কল্যান সেনগুপ্ত ……. ভয় অণুগল্প চুমকি চট্টোপাধ্যায় ……. মুন্সী ফ্যমিলির লকডাউন সোমনাথ বেনিয়া …….. ঘা রম্যরচনা দর্পণা রায় ….. প্রশ্ন: বামাতি ও জামাতির তুলনা করো  বিশেষ রচনা ডা. শিবাজী ভট্টাচার্য…..Read More →

স্যার, আপনাকে অভিক রায় ডেকেছেন। ফ্লোরের পিয়ন এসে দাঁড়ায়। কে অভিক রায়? অনির্বাণের আজ প্রথম দিন নতুন অফিসে, ড্রয়িংহলে বসে একটু নিজের বইপত্র গুছিয়ে রাখছে, এমন সময় পিয়ন এসেছে। আজ্ঞে সামনের চেম্বারে উনি বসেন। মালিকের ভাগ্নে। গেল তাহলে। এনার কাছেও কি ইন্টারভিউ দিতে হবে? ভিতরটা গুড় গুড় করে ওঠে। কেমনRead More →

ক্ষুধার ভেতর জন্ম নেয়  আরও একটি ক্ষুধার শরীর।  আলোর মুখোশ ভেদ করে  যেটুকু আলো আসে,  তাতে পড়ে না কোন প্রতিবিম্ব।  নগ্ন উৎসের কাছে যে ফিরে আসে  রামধনুর কোরিওগ্রাফি তার অজানা।  প্রাসাদের বাইরে নক্‌শার যে কারুকাজ ভেতরেও কি আছে সুদৃশ্য সিংহাসন? ক্ষুধার ভেতর ডুবে যাচ্ছে একটা করে পৃথিবী… মহাপৃথিবীর যাত্রী হয়েRead More →

সব কথা এখন বলা কঠিন। মনে নেই । ঐ যে আমার দেশের বাড়ির নদীটা। ওটা পেরিয়ে চলে যেতাম মায়াপুরে, একদিন । ঘাটে নেমে চষা মাঠের মধ্যে দিয়ে,  এর-ওর ক্ষেত থেকে মটর, ছোলা তুলে খেতে খেতে । তখন সবে তো সেভেনে । দাদার সাইকেলটা চালাই মানুষটা তাঁতঘরে থাকলে,  তাও জোর মহানির্বান মঠ পর্যন্তRead More →

প্রজারা সন্ত্রস্ত হবে ভেবে গোপন করেছি নথি  ক্ষমতার বাম হস্তে  থামিয়েছি সংক্রমণ  দক্ষিনে কর্তব্য, দিক নির্দেশ ; রক্তের বিরুদ্ধ স্বভাব, ঝড়ের দমকা বুঝিনিতো  # সত্য আড়াল করি রোমাঞ্চকর —  আলোর অভাবে ধর্ম নষ্ট, তাচ্ছিল্য হাসেন ঈশ্বর  # সংখ্যালঘু রক্ষা পেলে রক্ষা হয় রাজধর্ম  ফিসফিস গোপনীয় রহস্য গাভীন  নষ্ট দিন যাপনেরRead More →

একটি পাখির ডাক ও ভোর কোলাহলে দিনের পতন শুরু  দূরে শ্মশানে শব, নীরবতা  আগুনের চিৎকার ওড়ে বিষণ্ণ তুলো আর মহাকালের আস্তানা। তোমার চোখের পাতায় ঘুম  কুহকের রোদ,  জুঁই ফুল । তবু পাখির ডাক — নদীর স্রোত  ক্ষয়ে যাওয়া প্রত্ন পাথর মৃত জীবজগৎ আমাদের জীবনেরও…অবিরত পাখি ডাকে।  রথীন পার্থ মণ্ডলRead More →