উন্নতমানের আলট্রাসনিক ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর হলো স্যামসাঙ গ্যালাক্সি এস১০ ও গ্যালাক্সি এস১০ প্লাসের মূল আকর্ষণ। স্মার্ট, ঝকঝকে স্যামসাঙ গ্যালাক্সি সিরিজের এই ফোনের এমন সুরক্ষা ব্যবস্থা বরাবরই পছন্দ ব্যবহারকারীদের। এ বার সেই সুরক্ষাকবচকে আরও বেশি শক্তপোক্ত করতে আলট্রাসনিক ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরের একেবারে নতুন ভার্সন নিয়ে আসছে স্যামসাঙ।

আপডেটেড (V2.0.8.4)এই ভার্সনটি অবশ্য এখনও ভারতে এসে পৌঁছয়নি। নয়া সেটি ঘোরাফেরা করছে জার্মানি, পোল্যান্ড, নেদারল্যান্ড এবং ব্রিটেনে। সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, ভারতের বাজারে এই নতুন ভার্সনের ফোন লঞ্চ করবে খুব তাড়াতাড়ি। আপডেটেড ভার্সনটি সুরক্ষায় যতটা মজবুত, ওজনেও ততটাই হাল্কা, অর্থাৎ ইনস্টল করতে খুব বেশি জায়গা লাগবে না। ফাইল সাইজ মাত্র ৭ এমবি।

টেকস্যাভি জেন এক্স, জেন ওয়াইয়ের দুনিয়ায় আধুনিক জীবনের বেশিরভাগটাই স্মার্টফোনের ওই পাঁচ ইঞ্চি স্ক্রিনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। তাই অনেক সময় ফোনেই বহু ব্যক্তিগত তথ্য সঞ্চিত রাখার দরকার পড়ে। ফোনে পাসওয়ার্ড বা প্যাটার্ন লক করে ফোনের তথ্য সুরক্ষিত রাখা যায় ঠিকই, তবে সফটওয়্যার বিশেষজ্ঞরা কিন্তু সহজেই আনলক করতে পারেন ফোনের সাধারণ লক সিস্টেম। কিন্তু ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর থাকলে শুধুমাত্র আপনার আঙুলের ছাপেই চালু হবে আপনার ফোন। সুতরাং অন্য কারও হাতে পড়ে আপনার গোপন তথ্য ফাঁস হয়ে যাওয়ার ভয় থাকে না।

স্মার্টফোনের বাজারে স্যামসাঙই প্রথম কোয়ালকম ৩-ডি আলট্রাসনিক ইন-ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর নিয়ে আসে। গ্যালাক্সি এস১০-এর পর এর পরবর্তী মডেল গ্যালাক্সি এস১০ প্লাসেও রয়েছে এই ফিচার। বিশেষজ্ঞরা বলেন ফিঙ্গারপ্রিন্ট বা বায়োমেট্রিক এই ফিচার সবচেয়ে বেশি অভেদ্য। আর আলট্রাসনিক সেন্সর মানেই সেটা অনেকাংশে হ্যাকারদের ধরাছোঁয়ার বাইরে। ফিঙ্গারপ্রিন্টের ক্ষেত্রে যদি আঙুলের ছাপ আগে থেকে হ্যাকারদের হাতে না চলে আসে তা হলে তা ভাঙা খুব সহজ কাজ নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.