It’s ‘Cricket Jihad’! অতীতের স্বনামধন্য পাকিস্তানী তারকারা অনেকেই এখন conversion gang member: ইরফান পাঠান, জাহির খান ও মোহম্মদ কাইফকে নামাজে ডাকতাম, হরভজন ও নিমন্ত্রিত ছিল, ইনজামামের চাঞ্চল্যকর স্বীকারোক্তিতে সরগরম ক্রিকেট মহল

ধর্মীয় সন্ত্রাসের ফ্যাক্টরি পাকিস্তানের জেহাদি চেহারা উন্মোচিত হয়েছে সর্বত্র। রাজনীতি, কূটনীতি থেকে খেলার মাঠ, জেহাদে মদত দেয়ার জন্য বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছে ওই দেশ।

ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড নিরাপত্তার জন্য পাকিস্তান সফর বাতিল করেছে। সৌহার্দের খেলার মাঠে ও এখন ধর্মান্তকরণের খেলা চলছে।
ক্রিকেট ছাড়ার পর অতীতের নামকরা পাকিস্তানী ক্রিকেটাররা অনেকেই এখন মৌলবী ও মৌলানাদের জীবনযাপন করছেন। ধর্মীয় কট্টরপন্থা বেছে নেয়া তারকাদের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। ইনজামাম-উল-হক থেকে শুরু করে সাকলাইন মুস্তাক ও ইউসুফ ইউহানা সবাই এখন ধর্মান্তকরণের গ্যাঙের সদস্য বলা যেতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া # ক্রিকেট জিহাদ নামে হ্যাশট্যাগে ভাইরাল হয়েছে পাকিস্তানের অবসরপ্রাপ্ত তারকা ক্রিকেটারদের যারা প্রকাশ্যে ধর্মান্তকরণের সপক্ষে অদ্ভুত যুক্তি তুলে ধরছেন। ইনজামাম, সাকলাইন, ইউসুফ ইউহানা সবাই বিধর্মীদের কি করে ইসলামে ধর্মান্তরিত করা যায় তার ফন্দি আঁটছেন।

চাঞ্চল্যকর ভাইরাল ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে টুপি পরিহিত দাঁড়িওয়ালা প্রাক্তন ক্রিকেটারদের নিজেদের ধর্মের সপক্ষে ও বিধর্মীদের ইসলামে ধর্মান্তরিতকরণের ফর্মুলা নিয়ে কথা বলতে দেখা যাচ্ছে।
এক টুইটার পোস্টে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ করে বলা হয়েছে ব্রায়ান লারাকে ইসলামে দীক্ষিত করার ব্যর্থ চেষ্টা চালিয়েছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.