ঠিক যেমন প্রত্যেক মানুষের ভাল এবং খারাপ দিক থাকে সেরকম, প্রতিটি সরকারও কিছু ভাল কাজ করে এবং এমন অনেক ক্ষেত্র থাকে যেখানে সে আরও ভাল করতে পারে। এই নিবন্ধটিতে সেই ভাল এবং খারাপের বিবরণ দেওয়া হল।
কেউ যদি বলেন যে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ওপর প্রতিশ্রুতি উপহারের আরোপ আছে, আমি তার সাথে একমত হব।

ভারতীয়রা দেশের অগ্রগতি নিয়ে উদ্বিগ্ন কিন্তু, তা যেন তাদের জীবনকে প্রভাবিত না করে। কেবলমাত্র একদিনেই এম এস ধোনিকে আকাশে তুলে প্রশংসা করবে, আবার পরের দিনই তার বাড়িতে পাথর মারবে। এই নিবন্ধটি সরকারের সাফল্য এবং ত্রুটি দুই নিয়েই আপনাকে স্মৃতিচারণ করাবে।

এক) এই বছর আমি সাতপুরা পাহাড়ের কাথি গ্রামের আদিবাসীদের সাথে হোলি কাটিয়েছি। এটি মহারাষ্ট্রের নন্দরবার শহর ও গুজরাট সীমান্ত থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে।

আমরা শেষ পর্যন্ত নর্মদা নদীতে পৌঁছানোর জন্য, অভ্যন্তরীণ এলাকার আদিবাসী গ্রাম ধাদগাঁও থেকে আমাদের সভ্য গ্রামে চলে এসেছি। প্রায় প্রতিটি বাড়িতে একটি টয়লেট ছিল। ২০১৮ সালের জুলাই মাসে মধ্যপ্রদেশের ওমরেশ্বরের মন্ধাটা পাহাড়ে পরিক্রমা করার সময় নতুন তৈরি টয়লেট দেখতে পাই।
ধাদগাঁও গ্রামের আশেপাশের বৈদ্যুতিক পোলগুলো নতুন মনে হয়েছিল। আদিবাসীরা বলেছিলেন, গত বছরই এগুলো রাখা হয়েছে। (সৌভাগ্য-বিদ্যুৎ প্রতিটি ঘরের জন্য)।

দুই) ২০১৩ সালের একটি সফরকালে আমাদের ডিব্রুগড় থেকে অরুণাচল প্রদেশে যাওয়ার পথে ব্রহ্মপুত্র নদী অতিক্রম করতে হয়েছিল । রেল সড়ক সেতু সবই অসম্পূর্ণ ছিল। জিজ্ঞেস করায়, সেনা জওয়ানরা অভিযোগ করেছিলেন যে সরঞ্জাম দিয়ে নদীটি নেভিগেট করা একপ্রকার দুঃস্বপ্নের মতো। ২০১৮ সালে বগুবেল সেতু উদ্বোধন করা হয়। তখন আমি জানতে পেরেছিলাম যে এই সেতু ১৯৮৫ সালের আসাম অ্যাকর্ডের অংশ ছিল কিন্তু অনুমোদিত হয় ১৯৯৭-৯৮ সালে।

তিন) ইউপিএ-২ এর সময়কালে মুদ্রাস্ফীতি দুই অঙ্কে ছিল ও তুওর ডালের দাম চরমে ছিল (সাম্বার বানাতে ব্যবহৃত)।
Tradingeconomics.com এর মতে, ২০১৯ সালের মার্চ মাসে খুচরা মূল্যস্ফীতি ছিল ২.৮৬% । এখন উপভোক্তারা অধিক মূল্য নিয়ে অভিযোগ করেন না, বরং তারা কম মুল্যের জন্য যে কৃষকদের ক্ষতি হচ্ছে তা নিয়ে বেশি সরব। অধিকতর মানুষ জানেন না যে সংবিধান আনুসারে কৃষি প্রতিটি রাজ্যের নিজস্ব বিষয়, তাই কৃষকের দুর্দশার সমাধান মূলত রাজ্য সরকারের দায়িত্ব।

চার) প্রথম আন্তর্জাতিক যোগ দিবসটি জুন ২015 সালে উদযাপন করা হয়। জাতিসংঘ বা আমেরিকায় এই দিনটি পালন করা একটা বড় ব্যাপার।
গোটা বিশ্ব উপলব্ধি করল যে ভারত যোগ ব্যায়ামের উৎস এবং মানবতার প্রতি ভারতের অবদান কতটা।

পাঁচ) বিশ্বের সকল জাতি সৈন্যদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে থাকে যারা সর্বোচ্চ আত্মত্যাগের জন্য সর্বদা প্রস্তুত । ভারতবর্ষের একটা জাতীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ গড়তে ১৯৪৭ সাল থেকে ২০১৯ সাল লেগে গেল।

ছয়) ট্রেন 18, একটি অর্ধ উচ্চ গতির ট্রেন : ২০১৯ সালে ট্রেন 18 চালু করা হয়, যা অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রতি ঘন্টায় ১৮০ কিলোমিটার সর্বোচ্চ গতিতে চলার একটি অর্ধ উচ্চ গতির ট্রেন, প্রত্যেক ভারতীয়দের জন্য একটি গর্বের মুহূর্ত।
ট্রেন 18 এর একটি প্রচার ভিডিওতে দেখানো হয়েছে যে, একটি বুলেট ট্রেনের গতিতে এই ট্রেনটি ক্রুজ করে। অতিরঞ্জিত করা অবশ্য এই সরকারের একটি অপূর্ণতা।

সাত) কল সেন্টার, যুবা, দান্তেওয়াদা বাস্টার, ছত্তিশগড় : ২০১৮ সালের অক্টোবরে বস্তার দান্তেওয়াদা সফরকালে আমি সরকারের একটি কল সেন্টার পরিদর্শন করেছিলাম। আজ সেটিি তিনটি আই.টি. কোম্পানি মিলিয়ে ৪৫৭ জন কর্মচারী পরিচালনা করে। কল সেন্টারটি ডিসেম্বর ২০১৭ সালে শুরু হয় এবং এটি 1,500 জনের ক্ষমতা ধারণ করে।
মনে রাখবেন দান্তেওয়াড়া অঞ্চল নকশাল প্রভাবিত। গত সপ্তাহে দান্তেওয়াডে বিজেপির বিধানসভার সদস্য ভিমা মান্ডভি ও চারজন দেহরক্ষীকে সন্ত্রাসী হামলায় হত্যা করা হয়েছিল।

আট) যখন এলপিজি দাম বাড়িয়েছিল, তখন বলা হয়েছিল যে ভর্তুকি সরাসরি আমাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করা হবে। এই লেখক সহ অনেকেই ভাবছেন যে সরকার প্রক্রিয়াগুলি কার্যকর হতে পারে কিনা। সিলিন্ডার বিতরণ এবং প্রত্যেক মাসে 3 দিনের মধ্যে ভর্তুকি পাওয়ার জন্য আমি যথেষ্ট অবাক হয়েছি।
প্রথমবারের মতো সরকার এলপিজি সাবসিডি ছেড়ে দিতে একটি প্রচার শুরু করে। টাইমস অফ ইন্ডিয়া রিপোর্ট অনুসারে, মোট ব্যবহারকারীর তাদের ভর্তুকি ছেড়ে দেওয়ার সংখ্যা কমপক্ষে এক কোটি।

নয়) প্রায়ই শুনেছেন নির্দোষ বাড়িওয়ালা সন্দেহজনক নির্মাতাদের দ্বারা প্রতারিত হচ্ছে।
রিয়েল এস্টেট (রেগুলেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট) অ্যাক্ট, ২০১৬ (আর.ই.আর.এ) ২৬ মার্চ ২০১৬ প্রণয়ন করা হয়েছিল, যার বিধান ২০১৭ সালের ১লা মে মাসে কার্যকর হয়েছিল।
এটি বাড়ি ক্রেতাদের স্বার্থ রক্ষার জন্য এবং রিয়েল এস্টেট সেক্টরে স্বচ্ছতা বাড়ানোর জন্য চালু করা হয়েছিল। ডেভেলপারদের তাদের প্রকল্প RERA-র সঙ্গে নিবন্ধিত করতে হবে।
যদি কোন রাজ্য, কেন্দ্রীয় আইনের অধীনে তৈরি মডেল বিধিগুলির ভিত্তিতে নিয়মগুলি অবহিত না করে নিজস্ব আইন পাস করে যেমন পশ্চিমবঙ্গে হয়েছে, তবে ক্রেতারা ভোগান্তি ভোগ করবে।
বিদ্বেষপূর্ণভাবে কিছু মানুষ রিয়েল এস্টে্টের ধীরগতির কারণ হিসেবে RERA কেও দোষারোপ করে।

দশ) ইউপিএ ২ এ আধার গড়ে ওঠে এবং যথেষ্ট কাজ হয়, তা সত্ত্বেও বর্তমান সরকার এটিকে আধার এক্ট হিসাবে পাস করে, যদিও রাজ্যসভায় আলোচনা এড়িয়ে যাওয়ার জন্যে এটিকে একটি মানি বিল হিসাবে পাস করানো হয়।
এটি সুপ্রিম কোর্টে তার ভূমিকা পালন করেছিল, যারা আইনটিকে সাংবিধানিকভাবে বৈধ বলে ধরেছিল। এছাড়াও সর্বোচ্চ আদালত আধার নম্বরের সাথে প্যান কার্ডও (স্থায়ী অ্যাকাউন্ট নম্বর) বাধ্যতামূলকভাবে সংযুক্ত করার অনুমতি দেয়।
এন এস রামনাথ ও চার্লস অ্যাসিসির লেখা ‘দ্য আধার ইফেক্ট’ বইটির একটি অংশ। “আর্থিক বিনিয়োগ এবং ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সাথে সংযোগকে যুক্ত করে ট্যাক্স কর্তৃপক্ষ খারাপ দিকগুলির আরও ভাল দৃশ্যমানতা পেয়েছে। ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংকের ভূতপূর্ব গভর্নর রঘুরাম রাজন বলেন, ‘আধার ভিত্তিক সিস্টেমে যাওয়ার ফলে, এর প্রভাবে আরও ভাল ফল পেতে পারেন।’

এগারো) টয়লেট রোডাসার লাকি ভিলেজ, ফকিরানী মুসলিম, নারায়ণ সারোয়ার কাচ, ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারী : এই সরকার হিন্দুদের সমান মানবাধিকারের ক্ষেত্রে খুবই সামান্য করেছে।
উদাহরণস্বরূপ, হিন্দুরা তাদের নিজস্ব মন্দির পরিচালনা করতে (অন্তত একটি প্রধান মন্দিরের সাথে শুরু করতে) আইন পাস করা বা শিক্ষার অধিকারের আইনের বিচ্ছেদকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য প্রবিধান করা ইত্যাদি।
“আইন, যা সমাজের অর্থনৈতিকভাবে দুর্বল অংশকে আসল মানের শিক্ষার সুবিধায় নিয়ে আসে, সন্দেহজনকভাবে সংখ্যালঘু বিদ্যালয়ে তা প্রযোজ্য নয়।”
সরকারী বৃত্তিগুলিতে হিন্দুদের সমান সুযোগ সহ প্রদানের পরিবর্তে, “সংখ্যালঘু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী (আইসি) মুখতার আব্বাস নকভি ৭ ই ফেব্রুয়ারী ২০১৭ তারিখে রাজ্যসভার কাছে জানায়, তাঁর সরকার সারা দেশে নয়টি “স্কিম পরিচালনা করেছে (গ্রামীণ এলাকাসহ), মুসলিম, খ্রিস্টান, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন ও পার্সি নামে পরিচিত ছয়টি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের শিক্ষা ক্ষমতায়নের জন্য।”

বারো) নানাবিধ মামলা ইত্যাদি থাকা সত্ত্বেও “শোধাক্ষমতা ও দেউলিয়া কোড ২০১৬” র উপোস্থাপনা এই সরকারের একটা মাইলস্টোন।
প্রমোটাররা এখন বুঝতে পারছেন যে তারা যদি ব্যাংক ঋণের ত্রুটিযুক্ত বা ডিফল্টার হয় তবে তারা তাদের কোম্পানিগুলিও হারাতে পারে। নিশ্চিতভাবেই আইবিসি কোডটির এখনও দীর্ঘ পথ চলা বাকি রয়েছে কিন্তু কোনও দেশ এটিকে প্রথম দিন থেকে কার্যকর করে পরিচালিত করতে পারেনি।

তেরো) মোদী সরকার রুপে কার্ডও প্রবর্তিত করেন: ডোমেস্টিক পেমেন্ট নেটওয়ার্ক রুপের প্রবর্তন। এই মিনিটের রিপোর্টের মতে, “ভারতের 1 বিলিয়ন ডেবিট এবং ক্রেডিট কার্ডের অর্ধেকেরও বেশি অর্থ এখন রুপে পেমেন্ট সিস্টেমের মধ্য দিয়ে যায় এবং এর অর্থ হল মাস্টার কার্ডের মতো কোম্পানিগুলির একটি চূড়ান্ত কাজ হোল নিজেদের দ্রুত বিস্তৃত করা”।
এর সাফল্যের কারণে মাস্টারকার্ড আমেরিকা সরকারকে জানাতে বাধ্য হয়েছিল যে মোদি সরকার রুপেকে উন্নীত করার জন্য জাতীয়তাবাদ ব্যবহার করছে।

চৌদ্দ) এই সরকারই তালাকের বিরুদ্ধে সুপ্রীম কোর্টে বা মুসলিম স্ত্রীদের তাদের স্বামীর তাতক্ষণিক দেওয়া ট্রিপল তালাকের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিল। প্রথমবার মুসলমানদের মধ্যে লিঙ্গ বৈষম্যের জন্য কোন সরকার দাঁড়িয়েছিল। দুর্ভাগ্যজনক যে ‘নিকাহ হালালা’ এবং বহুবিবাহের প্রথা এখনও চলছে।

পনেরো) ডিজিটাল ভারতের উপর জোর। কয়েক সপ্তাহ আগে একটি JIO শোরুমে গিয়েছিলাম। তারা আমার আধার কার্ড চেয়েছিল এবং আমি কয়েক মিনিটের মধ্যে সিমটি পেয়েছিলাম। কোন ফটোকপি-ফটোগ্রাফ, পরিচয় প্রমাণ ইত্যাদি ছাড়া। কাগজ সংরক্ষণ মানে গাছ সংরক্ষিত রাখা।
মার্চ ২০১৯ সালের ম্যাকিন্সির এক রিপোর্ট অনুসারে, “অনেকগুলি পদক্ষেপের মাধ্যমে, ভারত একটি ডিজিটালভাবে উন্নত দেশ হয়ে উঠার পথে চলেছে। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে ভারতের ৫৬০ মিলিয়ন ইন্টারনেট গ্রাহক, মানে শুধুমাত্র চীনের পরে। ২০১১ সাল থেকে ভারতীয় প্রাপ্তবয়স্করা অন্তত একটা ডিজিটাল আর্থিক অ্যাকাউন্টের উপভোক্তা, এর জন্যে সরকারের ব্যাপক পরিমানের জনসাধারণের আর্থিক অন্তর্ভুক্তি প্রোগ্রাম, জন-ধন পরিকল্পনাকে ধন্যবাদ।
“২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারী নাগাদ প্রায় ৮৭০ মিলিয়ন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সংযুক্ত হয়েছে, ২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে ৩৯৯ মিলিয়ন এবং জানুয়ারি ২০১৪ সালে ৫৬ মিলিয়ন ছিল। একইভাবে ২০১৩ সালে প্রতিষ্ঠিত গুডস অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্যাক্স নেটওয়ার্ক ১০.৩ মিলিয়ন পরোক্ষ করের সমস্ত লেনদেন একটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে এনে, ব্যবসাগুলি ও তাদের ক্রিয়াকলাপকে ডিজিটাইজ করার জন্য একটি শক্তিশালী উত্সাহ সৃষ্টি করা “।
“উত্তরপ্রদেশ ও ঝাড়খন্ডের মত নিম্ন আয়ের রাজ্যগুলি ইন্টারনেটের অবকাঠামো প্রসারিত করছে এবং ধনী রাজ্যগুলির চেয়ে দ্রুত নতুন গ্রাহকদের ইন্টারনেট পরিষেবায় অনুপ্রবেশ বাড়ছে। ২০১৪ – ২০১৮ সালের মধ্যে উত্তর প্রদেশ একা ৩৬ মিলিয়ন ইন্টারনেট গ্রাহক যোগ করেছে “।

ষোল) সরকার জানত যে বিজয় মাল্যর বিমানগুলি চরম শোচনীয় অবস্থায় ছিল এবং ব্যাংকগুলো বিশাল পরিমানে অর্থ প্রদান করেছিল। তখন তিনি দেশ থেকে পালিয়ে যাওয়ার অনুমতি পেলেন কি করে?
আশা করি আরকোনো এনআরআই, যার বিমান বিধ্বংসী অবস্থায় রয়েছে, দেশ থেকে পালিয়ে যাওয়ার অনুমতি পাবে না।

সতেরো) ভারতের বাণিজ্যিক রাজধানী মুম্বাইকে পরিকাঠামো তৈরীর প্রকল্পের ক্ষেত্রে সবসময় ধাপে ধাপে চিকিত্সা দেওয়া হয়। উদাহরণস্বরূপ, উপকূলীয় রাস্তাটি ১৯৭০ এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে পরিকল্পনা করা হয় এবং ভূমি আংশিকভাবে পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল, তবে ২০১৯ সালেই কাজটি শুরু হয়।
এত মেট্রো প্রকল্প একযোগে নির্মাণ অভূতপূর্ব এবং ঘনবসতিপূর্ণ মুম্বাই এর মধ্যে করা যথেষ্ট কঠিন কাজ। এটি সম্পন্ন হলে ভ্রমণ সহজতর হবে।
একইভাবে লম্বা মুলতুবি ট্রান্স-হারবার লিংক নির্মাণের চুক্তি প্রদান করা মুম্বাই কে জণাজীর্ণতা মুক্ত করবে এবং হিন্টারল্যান্ড বিকাশ করবে।

আঠারো) বিদেশ সফরকালে প্রধানমন্ত্রীর বিমানটিতে সাংবাদিকদের নিয়ে সাংবাদিকতা গ্রহণের প্রথা সরকার বন্ধ করে দিয়েছে। সাংবাদিকরা যদি বিদেশ সফরটির নিউজ কভার করতে চায়, তাহলে তাদের মিডিয়া হাঊজ তাদের খরচ বহন করবে, করদাতা নয়!

উনিশ) এই সরকার বিশ্বের সবচেয়ে লম্বা মূর্তি নির্মাণ করেছে। এটি নিশ্চিত করেছে যে, ভারত সরদার প্যাটেলের আধুনিক দিনের অবদানে স্বীকৃতি দেয়।

বিশ ) নবায়নযোগ্য ঊর্জাশক্তির প্রতিশ্রুতি :
২০১৮ সালের বিজনেস টুডি রিপোর্ট অনুসারে, “সৌর শক্তির ক্ষমতা ২০১৩ সালে ২.৬৩ গিগাবাইট থেকে ২২ গিগাবাইট পর্যন্ত বেড়েছে”। ক্রাইসিল বলছে, ২0২3 সালের মার্চ মাসে ভারত 70 জিডাব্লিউ ইনস্টল সৌর ওয়াট ক্ষমতা অর্জন করবে, সরকারের লক্ষ্যমাত্রা ২০২২ সালের ১০০ জিডব্লিউ নির্ধারণের বিরুদ্ধে।
উচ্চাকাঙ্ক্ষী লক্ষ্যমাত্রার জন্য বহুলোক সরকারকে সমালোচনা করবেন কিন্তু সাফল্য গুরুত্বপূর্ণ।

একুশ) সুত্রের খবর, ২২ শতাংশ জিডিপির শতকরা হিসাবে প্রতিরক্ষা ব্যয় ক্রমাগত পতনশীল। ১৯৯২-এর দশকে প্রায় ২.২৭%, ২০১৬ সালে ১.৫৬% (পেনশন বাদে) এবং ২০১১৯-২০ সালে ১.৫% ছিল।
বিদ্বেষপূর্ণভাবে ১৯৬২ সালের প্রাক্কালে এটি প্রায় ১.৫% ছিল।
নিরাপত্তা হুমকির পরিমাণ বেড়েছে, এখনো ভারতের প্রতিরক্ষা ব্যয়ের গতি বাড়ছে না।

বাইশ) দুটি পদক্ষেপ যা ডিজেলের খরচ এবং কার্বন ফুট মুদ্রণকে কমাবে।
জিএসটি বাস্তবায়ন হওয়ার ফলে ই-ওয়ে বিলের প্রবর্তনের অর্থ হল ট্রাকগুলি সীমান্ত চেক-পোস্টে অপেক্ষা করে না এবং কম কাগজের ডকুমেন্টেশন মানে কম গাছ কাটা।
ই-ওয়ে বিল সিস্টেমের উপকারিতা এবং অসুবিধাগুলি পড়ুনঃ
প্রথম ভারতীয় রেলওয়েতে, ডি-কার্বনাইজেশন এজেন্ডার অংশ হিসাবে, ডিসেম্বরে ২০১৮ সালে ডিজেলের ইঞ্জিনটিকে বৈদ্যুতিক রূপে রূপান্তরিত করে।

তেইশ) ২০১৭ সালে গরু বিক্রয় ও বধের বিরুদ্ধে সরকারি সার্কুলার খুব বাজে ভাবে কার্যকর হয়েছিল। পরিবর্তে সরকার গরুর মাংসের ক্ষতিকর প্রভাবগুলি হাইলাইট করে প্রচার মাধ্যমে প্রচার চালাতে পারত। টাইম ম্যাগাজিনের ২০১৯-এর একটি নিবন্ধ অনুসারে, “আমেরিকানরা প্রোটিন নিয়ে আচ্ছন্ন। গবেষণায় লাল এবং প্রক্রিয়াকৃত খাবার এবং টাইপ 2 ডায়াবেটিস, হৃদরোগ এবং ক্যান্সার সহ বহু দীর্ঘস্থায়ী রোগের খাদ্যের মধ্যে অ্যাসোসিয়েশন পাওয়া গেছে। বিশ্ব অর্থনীতি ফোরাম (ডাব্লুএফএফ) এর জানুয়ারিতে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন অনুসারে শুটি, মটরশুটি এবং বাদামের মত প্রোটিন-সমৃদ্ধ উদ্ভিদে যথেষ্ট প্রোটিন পাওয়া যায়, এমনকি গরুর মাংসকে মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য নয় বরং গ্রহের স্বাস্থ্যের জন্য বলে জানা গেছে।
সৈয়দ ফিরদাউস পশ্চিমের ভুল থেকে শিখেছেন এবং লিখেছেন যে কিভাবে তিনি নিরামিষাশী খাবারের জন্য ভালোবাসা আবিষ্কার করেছেন এবং ওজন কমানোর চেষ্টাতে সফল হয়েছেন।

চব্বিশ) ‘মন কি বাত’ প্রোগ্রাম। কোন প্রধানমন্ত্রী এখন পর্যন্ত সরাসরি, ধারাবাহিকভাবে এবং এই ধরনের বিস্তৃত বিষয়গুলি নিয়ে জনযোগাযোগ করেননি। জাতীয় অগ্রগতির জন্যে চিন্তার পরিবর্তন প্রয়োজন। একটি পুরানো ফ্যাশন রেডিও প্রোগ্রামের চেয়ে কি ভাল উপায় হতে পারে।

পঁচিশ) পেট্রোলিয়াম পণ্য মূল্য নিয়ন্ত্রণ। ভারত অয়েল বন্ড এবং পিএসইউ গুলোতে হওয়া পেট্রোলিয়াম লোডিঙ্গের জন্যে মূল্যের ঘাটতি কে গুড বাই জানিয়েছে। আজকের ভোক্তারা যা খরচ করেছে ততটাই মুল্য দেবেন, ইউপিএ র মতন নয় যে ২০০৫ থেকে ২০১০ এর মধ্যে তেল বন্ড জারি করবে যা ২০২১-২০২৬ এর মধ্যে পরিশোধ করতে হবে।

ছাব্বিশ) ২২ এপ্রিল ইন্ডিয়া টুডের একটি আর্টিকেলের অনুসারে, ভারতে উজালা স্কিমের অধীনে ৩৪৭ মিলিয়ন LED বাল্ব বিতরণ করা হয়েছিল। এই আর্টিকেল অনুযায়ী এই বাল্বগুলোর অনেক বিশেষত রয়েছে। দীর্ঘ জীবনকাল এবং শক্তি ও দক্ষতা। আম জনতার জন্য দাম খুব কম।

সাতাশ) সফলতম সংযোজনা কুম্ভো মেলা ২019-এ প্রয়াগরাজ, পৃথিবীর বৃহত্তম শান্তিপূর্ণ তীর্থযাত্রীদের সমাবেশ এই মাতৃভূমিতে। ২০১৩ সালে এলাহাবাদ রেলওয়ে স্টেশনে আমরা যা দেখেছি তার মতো কোন স্ট্যাম্পেড হয়েনি। ৩৬ জন মারা গেছিলেন। সংযোজনার প্রধান দায়িত্বে থাকা আযম খানকে পদত্যাগ করতে হয়।
আঠাশ) কয়লা এবং স্পেকট্রামের মত প্রাকৃতিক সম্পদের সফল নিলাম। সমালোচকরা যুক্তি দেবেন যে কয়লা উত্তোলনকারী রাজ্যের প্রকৃত রাজস্ব প্রাপ্তির দাবিগুলি কম। তবে, ই-নিলামের অর্থ হল কোলগেট এবং ২ জি স্ক্যামের ইতিহাস।

উনত্রিশ) ভারতে বিদ্যুৎ বোর্ডগুলির সামগ্রিক কারিগরি ও বাণিজ্যিক ক্ষতি (এটি ও সি) আর্থিক বছর ২০১১-১২ তে ২৬.৬%, ২০১৪-১৫ এ ২৫% (মোদি সরকারের প্রথম বছরে) এবং যা গতবছর ২০১৮-১৯ সালে ১৮.৮% ছিল।

২৬.৬ থেকে ১৮.৮ পর্যন্ত ক্ষতির শতাংশে উল্লেখযোগ্য পতন হয়েছে। উল্লেখ্য, ১৮.৮ নম্বর পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশা রাজ্যের বহির্ভূক্ত, দুটি রাজ্য যা উডয় -এ (উজওয়াল ডিসকোম নিশ্চিতকরণ যোজনা) স্বাক্ষর করেনি।
যদিও এটি এন্ড সি রাজ্য সরকারের দায়িত্ব, তবে কেন্দ্র সরকার কিছুটা ক্রেডিট দাবি করতে পারে। আশা করি এটি ২০১৯-২০ অর্থবছরের রাজ্যগুলিকে লক্ষ্যমাত্রা ১৫% অর্জনে প্রেরণা দিতে পারে।

ত্রিশ) মোদি হচ্ছেন একমাত্র ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী, যাকে রাশিয়ানরা, আমেরিকানরা, আরব ও পাকিস্থান পুনরায় নির্বাচিত করতে চান। বেশিরভাগ ভারতীয় দোষ খোঁজার পক্ষে ভাল, ভাল কাজের প্রশংসা করতে বা আপনাকে ধন্যবাদ জানাতে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.