Christchurch Terror Attack: ১২ বছরের বাচ্চার মৃত্যুর প্রতিশোধ নিতে ৪০ জন নামাজরত ব্যক্তির জীবন কেড়ে নেয় হামলাকারী!

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে শুক্রবার দুপুরে এক ব্যক্তি মসজিদে এলোপাথাড়ি গুলি করে প্রায় ৫০ জন ব্যক্তির জীবন কেড়ে নেন। এই হামলার দোষী অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক নাম ব্রেন্টন টেরন্ট। অভিযুক্ত ব্যক্তি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ঘোষণাপত্র জারি করে এই হামলার আসল উদ্দেশ্য বয়ান করে।

এব্বা একারল্যান্ড নামের এক ১২ বছর বয়সী বাচ্চা ছিল, যার মৃত্যু স্টকহোমে এপ্রিল ২০১৭ সালে জঙ্গি হামলায় মৃত্যু হয়। ওই জঙ্গি হামলার পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছিল। হামলাকারী একটি লরি হাইজ্যাক করে ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে ঢুকিয়ে দেয়। হামলাকারী উজবেকিস্তান এর নাগরিক ছিল, হামলার আগে সে নিজের ফেসবুক একাউন্টে ISIS বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর জন্য সুইডেনকে এই সাজা দিয়েছে বলে জানায়।

যখন ওই জঙ্গি লরি নিয়ে ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে হামলা চালায়, তখন সেখানে ১২ বছরের এব্বা কিছু কেনার জন্য উপস্থিত ছিল। জঙ্গি হামলার পর প্রথমে এব্বাকে নিখোঁজ ঘোষণা করা হলে, পরে তাঁকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে হামলা করার আগে হামলাকারী ৭৪ পাতার একটি বয়ান লেখে, সেই বয়ানে এই হামলার পিছনে ১১ টি কারণ জানায় সে। ওই ১১ টি কারণের মধ্যে অন্যতম ছিল ১২ বছরের বাচ্চা ‘এব্বা’ এর মৃত্যু। হামলাকারী সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখে, ‘ আমি এই হামলা এব্বার মৃত্যুর বদলা নেওয়ার জন্য করেছি।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.