ঋতম – অ্যাপ (মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন) যা খবর, মতামত ও চিন্তনকে প্রভাবিত করে।

চিন্তনের রসদ আপনার দোরগোড়ায়

এগ্রিগেটর বা একত্রীকরণের প্রয়োজন কেন?

মূলধারার মিডিয়ার বস্তুনিষ্ঠতার অভাবে সোশ্যাল মিডিয়ার মঞ্চগুলিই এখন সংবাদের প্রধান উৎস হয়ে উঠেছে। ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক দল, এনজিও এবং অনুরূপ সব প্রতিষ্ঠান এই মঞ্চগুলিকেই ব্যাপকভাবে ব্যবহার করছে। অন্য দিকে ফেসবুক, টুইটারের মতো সার্বজনীন সোশ্যাল মঞ্চগুলির গোপন ও সরাসরি পক্ষপাতদুষ্টতার কারণে তথ্য সরবরাহের ক্ষেত্রে একটা নিয়ন্ত্রিত ব্যবহার চলছে। এই সব সীমাবদ্ধতাকে অতিক্রম করতেএকের পর এক আরও সংবাদ-পোর্টাল ও অ্যাপ প্রকাশ পাচ্ছে। প্রযুক্তির মাধ্যমে এই যে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছনো তা সংবাদ সম্প্রচারের উদ্দেশ্যকেই বিপন্ন করে তুলছে, কেননা যাঁরা চান হয়ত বা তাদের কাছেই তথ্য পৌঁছতে পারছে না।
ঠিক এইখানেই ঋতমের আবির্ভাব। ঋতম অ্যাপটি একত্রিত করতে চায় সদর্থক ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান এবং প্রচারমাধ্যমের আলাদা আলাদা প্রচেষ্টাগুলিকে। এখানে খবর, মতামত এবং ধারণাগুলিকে একত্রিত করে সমাজের বিস্তৃত অংশে পৌঁছে দেওয়া হবে তার সুষ্ঠু সম্প্রচার পদ্ধতির মাধ্যমে। এটি তার ব্যবহারকারীকে নিজের আগ্রহের বিষয়ের ওপর নজর রাখতে ও পড়তে সাহায্য করবে। তাই ঋতম হল এমন একটি অ্যাপ যা বিভিন্ন প্রচেষ্টাকে সংহত, চিন্তাকে সমষ্টিবদ্ধ, ভাবনাকে একত্রিত এবং জাতিগঠনের উপযোগী আখ্যানসমূহের উপর গুরুত্ব আরোপ করে।

ঋতম : সমষ্টিকারী

ঋতম বিভিন্ন আঞ্চলিক ও জাতীয় খবর এবং মতামতের সংগ্রাহক ও সংযোগকারী। প্রচুর তথ্য বা বাছবিচারহীন খবরের বাহুল্যে জর্জরিত করা নয়, পাঠকের কাছে সুনির্বাচিত সংবাদ পরিবেশন করবে ঋতম। এটা বামপন্থী, বিদেশীমদতপুষ্ট, মেকি-ধর্মনিরপেক্ষ ও তথাকথিত উদারবাদী প্রচার মাধ্যমগুলির চিল-চিৎকারকে ফেলে এগিয়ে যাওয়ার সময়। শতকরা ৮০ ভাগ প্রচারমাধ্যম এইসব শক্তি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত এবং এরা বিদেশী প্রত্যক্ষ বিনিয়োগসহ এই ক্ষেত্রে আসা অর্থের প্রায় ৮০%-ই হাতিয়ে নেয়। ভারতের শাশ্বত ভাবনায় বিশ্বাসী একক ও সমবেত প্রকাশকদের – খবর, মতামত এবং চিন্তাকে এক জায়গায় নিয়ে আসা ও তার প্রচারের প্রয়াসই ঋতম।

বর্তমান সামাজিক প্রচারমাধ্যমের অবস্থান-

ডেইলি হান্ট:
২০১২ সালে শুরু
 ৫ কোটির বেশি ডাউনলোড
 চীনা কোম্পানী বাইট ড্যান্স দ্বারা ২০০ কোটির বিনিয়োগ
 ৫টি অন্যান্য বিদেশি বিনিয়োগকারী

নিউজ ডগ:
২০১৬ সালে শুরু
 ৫ কোটির বেশি ডাউনলোড
 চীনা বিনিয়োগকারী দ্বারা ৪০০ কোটির বিনিয়োগ
 হংকং-এর কোম্পানী
২০১৬ সালে শুরু

ইউসি নিউজ:
 ১০ কোটির বেশি ডাউনলোড
 চীনা কোম্পানী আলিবাবা দ্বারা চালিত
 ইউসি ব্রাউজারে আগে থেকে ইনস্টলড


Ritam App Promo – Hindi

আন্তর্জাতিক মহলের মদতপুষ্ট এই কায়েমী স্বার্থের বিরুদ্ধে লড়াই করার একমাত্র উপায় ছোট প্রচার মাধ্যমগুলির একত্রীকরণ যা কেবলমাত্র ঋতম-এর মত সংবাদ ও মতামত সংগ্রাহক ও সংযোগকারীর মাধ্যমে সম্ভব। ২০১৯ ভারতের জন-জীবনের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ বছর হতে চলেছে। যারা ভারতকে পশ্চিমী দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখছে তাদের সঙ্গে এর বিপরীতে যারা ভারতকে পুনর্জাগরণের দৃষ্টিতে দেখছে তাদের নিষ্পত্তিমূলক যুদ্ধ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.