সংঘাত মেটার ইঙ্গিত! মুকুল রায়ের দিল্লির বাড়ির বাইরে ফিরল মোদি-শাহের ফ্লেক্স

কয়েক দিন আগেরই কথা। আচমকা দিল্লির বাড়ির সামনে থেকে উধাও হয়ে যায় নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi) ও অমিত শাহর (Amit Shah) ছবি দেওয়া ফ্লেক্স-বিজেপির দলীয় পতাকা। যা নিয়ে ব্যাপক জল্পনা ছড়ায় মুকুল রায়কে (Mukul Roy) নিয়ে। দিল্লিতে বঙ্গ বিজেপির বৈঠক ছেড়ে মাঝপথেই কলকাতায় ফিরে আসার পিছনে দলের মধ্যে সংঘাতের গন্ধ পাচ্ছিল রাজনৈতিক মহল। কিন্তু কলকাতায় ফিরেই জল্পনায় জল ঢেলে মুকুল রায় জানিয়ে দেন, তিনি বিজেপিতেই আছেন, ছিলেন এবং থাকবেন। এদিকে, জল্পনা দূর হতেই ফের দিল্লি থেকে ডাক আসে মুকুলের। এসবের মধ্যেই নয়াদিল্লির বাড়ির সামনে উধাও হওয়া মোদি-শাহের ছবি দেওয়া ফ্লেক্স, বিজেপির পতাকাও ফিরে এলে।

এর আগে ফ্লেক্স উধাও হওয়ার কারণ নিয়ে মুকুল রায় ঘনিষ্ঠদের দাবি ছিল, রাজধানীতে সম্প্রতি ঝড় জলে ব্যানার ফ্লেক্স নষ্ট হয়ে গিয়েছে। কিন্তু দিল্লিতে বৃষ্টি হলেও ঝড় তেমন হয়নি। যাতে ফ্লেক্স নষ্ট হওয়ার নয়। তাহলে কি ইচ্ছা করেই সরানো হয়েছিল? প্রশ্ন ঘুরছিল রাজনৈতিক মহলে। তবে দলে কোনও সমস্যার কথা উড়িয়ে দিয়ে মুকুল রায় তখন জানান, ”চোখের সমস্যার জন্যই বৈঠক ছেড়ে কলকাতায় ফিরতে হয়েছে। অন্য কোনও কারণ নয়।” কিন্তু হঠাৎ ফ্লেক্স সরল কেন? তখন ব্যাপারটা পরিষ্কার ছিল না কারও কাছে।

প্রসঙ্গত, বেশ কয়েকদিন ধরে বিজেপির সঙ্গে তাঁর দূরত্ব তৈরির জল্পনা তৈরি হয়েছিল। বঙ্গ বিজেপি নেতৃত্ব তাঁকে গুরুত্ব দিচ্ছেন না, রাজ্য সভাপতির সঙ্গে তাঁর মতানৈক্য, যুব মোর্চার সভাপতি পদে তাঁর ছেলেকে না বসানো, যাবতীয় বিষয় নিয়ে তিনি অসন্তুষ্ট, এমনই খবর ঘুরছিল বাজারে। কিন্তু সমস্ত জল্পনা উড়িয়ে মুকুল রায় (Mukul Roy) জানিয়ে দেন, তিনি বিজেপিতে ছিলেন, আছেন ও থাকবেন। বলেন, ”আমার সঙ্গে বিজেপির কারও কোনও বিরোধ নেই। দলের কোনও সংঘাত নেই। আমাকে নিয়ে বিভ্রান্তিকর প্রচার চলছে। কারা এটা করছে তদন্ত হোক।’

গত তিনি রবিবার বলেছেন, ”বিজেপিতে যোগ দিয়ে আমি একশো শতাংশ সন্তুষ্ট। আমার কাছে দলের সংগঠনই বড় কথা। আমি দলের সংগঠনটাই করব। কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে আগে যেমন যোগাযোগ ও সম্পর্ক ছিল, সেরকমই আছে।” এর পরপরই সূত্রের খবর, নয়াদিল্লিতে ১৮১, সাউথ অ্যাভিনিউয়ের বাড়ির সামনে ফের নরেন্দ্র মোদি-অমিত শাহের ছবি দেওয়া ফ্লেক্স-বিজেপির পতাকা আবার ফিরে আসে। রাজনৈতিক মহলের ধারণা, দলীয় সংঘাত মেটানোর জন্যই ফের দিল্লি থেকে হাইকমান্ডের ডাক আসে মুকুলের কাছে। দলের মধ্যে ঝামেলা মিটমাট হতেই যা ছিল আবার তাই হয়ে গেল!

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.