প্রায় কেউ জানে না, ভাঙাচোরা এই বাড়িতেই লুকিয়ে ছিলেন ভগত্ সিং-সুখদেবরা!

পাঞ্জাবের ফিরোজপুরের এই দোতলা বাড়িতে ১৯২৮-২৯ সালে ছয় মাস আত্মগোপন করেছিলেন ভগত্‍ সিং, রাজগুরু এবং সুখদেব। ৮৮ বছর আগে এই দিনেই ইংরেজ শাসক ফাঁসি দিয়েছিল ভগত্‍ সিং, রাজগুরু, সুখদেবকে।

হাইলাইটস

  • ব্যক্তিগত মালিকানায় থাকা এই বাড়িতে মিউজিয়াম স্থাপনের জন্য দাবি উঠেছে।
  • ২০১৬-র অক্টোবরে পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টের নির্দেশে বাড়িটিকে হেরিটেজ ঘোষণা করে পাঞ্জাব সরকার।

রাস্তার ধারে ভাঙাচোরা বাড়িটায় পড়েছে বয়সের ছাপ। কোথাও খসে পড়েছে চুন-সুড়কি, কোথাও বা দেওয়াল বেয়ে গজিয়েছে গাছ। যাঁরা জানেন না, তাঁরা এর পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় একবার তাকানোরও প্রয়োজন মনে করেন না। কিন্তু এই বাড়ির দেওয়ালে কান পাতলে শোনা যাবে ইতিহাসের এক অমূল্য অধ্যায়। স্বাধীনতা সংগ্রামের রক্তক্ষয়ী দিনের বীরগাথা খদিত আছে এই বাড়ির প্রতিটা কোণে 

পাঞ্জাবের ফিরোজপুরের এই দোতলা বাড়িতে ১৯২৮-২৯ সালে ছয় মাস আত্মগোপন করেছিলেন ভগত্‍ সিং, রাজগুরু এবং সুখদেব। ৮৮ বছর আগে এই দিনেই ইংরেজ শাসক ফাঁসি দিয়েছিল ভগত্‍ সিং, রাজগুরু, সুখদেবকে। হাসতে হাসতে ফাঁসির দড়ি গলায় পরেছিলেন তাঁরা। দেশের নানা জায়গায় ২৩ মার্চ শহিদ দিবস পালিত হলেও বেশিরভাগেরই অজানা এই বাড়িটার কথা। ২০১৬-র অক্টোবরে পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্টের নির্দেশে বাড়িটিকে হেরিটেজ ঘোষণা করে পাঞ্জাব সরকার। তবে তারপরেও এর রক্ষণাবেক্ষণের প্রায় কোনও ব্যবস্থাই হয়নি। 


এই সেই বাড়ি

ব্যক্তিগত মালিকানায় থাকা এই বাড়িতে মিউজিয়াম স্থাপনের জন্য দাবি উঠেছে। সধারণ মানুষকে ভগত্‍ সিং ও অন্য স্বাধীনতা সংগ্রামীদের সম্পর্কে আরও অবগত করতে এই পদক্ষেপের প্রয়োজন রয়েছে বলে দাবি। 

#BhaagaanWala_BhagatSingh #भागांवालाभगत_सिंह

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.