প্রাক্তন নিরাপত্তা উপদেষ্টা শিবশঙ্কর মেননের দাবিকে নস্যাত করলেন ডিআরডিও র প্রাক্তন প্রধান ভি কে সারস্বত

ডিআরডিওর প্রাক্তন প্রধান ও বর্তমানে নীতি আয়োগের সদস্য ভি কে সারস্বত বলেছেন প্রাক্তন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা (এনএসএ) শিবশঙ্কর মেনন এর বিবৃতি, ডিআরডিও কখনোই এএসএটি পরীক্ষার অনুমতি চায়নি, কে ভুল দাবি করা হয়েছে বলে জানিয়ে স্পষ্ট করেছেন যে তিনি আগেই বলেছিলেন, ডিআরডিও সরকারকে লিখিত অনুরোধ নয় বরং ঘরোয়াভাবে বিষয়টি উপস্থাপনা করেছে ।

বামপন্থী প্রচার সাইট দি ওয়্যার ইউপিএ- আমলের নিরাপত্তা উপদেষ্টা শিবশঙ্কর মেননকে উদ্ধৃত করে একটি প্রতিবেদনে বলেছিল যে প্রাক্তন ডিআরডিও প্রধান মিথ্যা বলছে এবং ডিআরডিও কখনো এএসএটি পরীক্ষা সংক্রান্ত কোনো অনুমতি চায়নি।

সারস্বত আরও স্পষ্ট করেছেন যে, সেই সময়ে, ডিআরডিও বলেছিল যে তারা দুটি পরীক্ষা পরিকল্পনা করছে। একটি ইলেক্ট্রনিকভাবে উদ্দীপ্ত উপগ্রহের ট্রাজেক্টরির সাথে একটি ইন্টারসেপটরের আঘাত করার জন্য যাতে মহাকাশের ধ্বংসাবশেষ এড়ানো যায় এবং অপরটি তার সাফল্যের পরে, বাস্তব উপগ্রহ নিয়ে।

যদিও তিনি এই ধরনের কর্মসূচির প্রয়োজন সম্পর্কে ইউপিএ সরকারকে জানান, তার উত্তরে সরকারের শুধু নীরব থেকেছে।

সারস্বত আরো বলেন মেনন এর মন্তব্য ভুল এবং কাল্পনীক।

তিনি আরো বলেন যে এটি প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হিসাবে মনোহর পার্রিকরের সময় বর্তমান ডিআরডিও প্রধান জি সতীশ রেড্ডি একটি সরকারী প্রস্তাব পেশ করেছিল। শ্রী রেড্ডি সম্প্রতি বলেছেন যে বর্তমান জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল প্রধানমন্ত্রীরকে প্রস্তাবটি জানান এবং প্রধানমন্ত্রী মোদি ২০১৬ সালে প্রকল্পটিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী মোদি ভারত সফলভাবে এএসএটি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাটি সম্পন্ন করেছে ঘোষণা করে। এর ফলে ভারত বর্তমান বিশ্বে এই বিরল ক্ষমতা অর্জনকারী অভিজাত দেশগুলির গোষ্ঠীভুক্ত হোল। তাই এখন কংগ্রেস ও তার সহযোগী দলগুলি প্রমাণ করতে চাইছে যে, ইউপিএ সরকারের অধীনে ভারত এই ক্ষমতা অর্জন করেছে কিন্তু এনডিএ সরকার নিজেদের বলে প্রচার করছে।

তবে যাই হোক না কেন প্রক্তন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এ কে অ্যান্টনি মিডিয়ার কাছে বলেছেন যে তিনি এমন কোনও প্রোগ্রাম সম্পর্কে জানতেন না

শিবশঙ্কর মেননকে উদ্ধৃত করতে গিয়ে দি ওয়্যার এর নিবন্ধটিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, সারস্বত এএসএটি বিষয়ে একটি ঘরোয়া উপস্থাপনা দিয়েছিলেন। বিভিন্ন সংবাদ প্রতিবেদনগুলিও উল্লেখ করেছে যে, মনমোহন সিং সরকারের তরফ থেকে এটি এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়নি। তাই এটা স্পষ্ট যে এই বিষয়টি ইউপিএ সরকারের কাছ থেকে কখনোই সবুজ সংকেত পায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.