দিল্লির বাটলা হাউসের এনকাউন্টারের বাস্তব; কংগ্রেস নেতারা এটিকে ভোটের জন্য ব্যবহার করেছিলেন, প্রাক্তন এলজি তেজেন্দ্র খান্না তার টেল-অল বইতে প্রকাশ করেছেন

কংগ্রেসের মতো ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যে দেশের সৈন্য এবং পুলিশ সদস্যদের সততা এবং নিষ্ঠা নিয়ে সন্দেহ করার প্রবণতা ও সন্ত্রাসবাদী এবং দেশবিরোধী শক্তিগুলিকে নিরস্ত করার সময় সৈন্য ও পুলিসের চরিত্র হনন ও আক্রমণের প্রবণতা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ।একজন প্রাক্তন বেসামরিক কর্মচারী যিনি ক্যাডারে উঠেছিলেন এবং দিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন, তিনি ১৯ সেপ্টেম্বর ২০০৮ এর বাটলা হাউস শুট আউটের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার জন্য কংগ্রেস নেতাদের প্রকাশ্যে তিরস্কার করেছেন যা মোহন চাঁদ শর্মার চরমতম বলিদান দেখেছিল, যিনি দিল্লি পুলিশের একজন ইন্সপেক্টর ছিলেন এবং দুই ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন সন্ত্রাসীকে চিরতরে শেষ করা হয় ।

দিল্লি পুলিশের একটি দল গোয়েন্দা তথ্য পেয়েছিল যে আইএম সন্ত্রাসীরা যারা জাতীয় রাজধানীতে ১৩ সেপ্টেম্বর ২০০৮ -এ পাঁচটি ধারাবাহিক বিস্ফোরণের পরিকল্পনা করেছিল যার ফলে ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছিল এবং ১০০ জনেরও বেশি লোক আহত হয়েছিল , বাটলা হাউসের একটি অ্যাপার্টমেন্টে লুকিয়ে ছিল। ১৯ সেপ্টেম্বর একটি মোবাইল ফোন সার্ভিস কোম্পানির কর্মচারীর পরিচয় দিয়ে বাড়িটি পুলিসেরা ঘিরে ফেলে। যেই সন্ত্রাসীরা দেখতে পায় যে তারা বিপদে পড়েছে তারা গুলি চালায় যা ইন্সপেক্টর শর্মার জীবন নিয়ে নেয় । পরবর্তী বন্দুকযুদ্ধে, দুই আইএম সন্ত্রাসী নিহত হয়, হাতাহাতির মধ্যে দুইজন পালিয়ে যায় এবং ফ্ল্যাটে উপস্থিত এক ব্যক্তি পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করে।

সন্ত্রাসীরাই প্রথমে গুলি চালায় এবং এতে শর্মার প্রাণ যায়। তৎকালীন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শিবরাজ পাটিল যখন দিল্লি পুলিশ সদর দফতরে একটি নিরাপত্তা পর্যালোচনা সভায় সভাপতিত্ব করছিলেন, তখন গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছিল, দিল্লির তৎকালীন লেফটেন্যান্ট গভর্নর তেজেন্দ্র খান্না তাঁর স্মৃতিকথা “An Intent To Serve; একটি সিভিল সার্ভেন্ট রিমেম্বারস” যা ১২ মে মুক্তি পাবে। মজার বিষয় হল, খান্না কংগ্রেস নেতাদের একজন প্রিয় আমলা ছিলেন এবং তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের অনুরোধে তাকে নয়াদিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর নিযুক্ত করা হয়েছিল।

তেজেন্দ্র খান্না নির্দিষ্ট কিছু রাজনীতিবিদদের সমস্যাযুক্ত বিষয়ে বিরূপ রাজনীতি করা এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কর্মকে প্রশ্নবিদ্ধ ও সন্দেহের মুখে ফেলে করে সংখ্যালঘুদের সন্তুষ্ট করার জন্য অত্যন্ত সমালোচনা করেন । যারা নাগরিকদের জীবনকে নিরাপদ করতে সার্বক্ষণিক কাজ করে সেই পুলিশের ক্রিয়াকলাপের সত্যতা নিয়ে সেইসব রাজনীতিক দ্বারা উদ্ভূত সন্দেহ ও সত্যতার মিথ্যাচার করা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মনে ভয়ের মনোবিকারকে আরও বাড়িয়ে তোলে।

খান্না বলেছেন যে এনকাউন্টারের পরে, কিছু প্রবীণ রাজনীতিবিদ, মুসলিম সম্প্রদায়ের নেক নজর ও সমর্থন অর্জনের ইচ্ছায় এই ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি করতে শুরু করেছিলেন। “তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী কপিল সিবালকে আমার কাছ থেকে পরিস্থিতির সত্যতা জানতে বলেছিলেন,” খান্না লিখেছেন।

কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক দিগ্বিজয় সিং বাটলা শুট আউটের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার অগ্রভাগে ছিলেন এবং এমনকি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবিও করেছিলেন। “এটি একটি ভুয়ো এনকাউন্টার ছিল এবং সেই আবাসিক এলাকায় পুলিশের এই রকম কার্যকলাপের কোনো অধিকার ছিল না। ভুয়ো এনকাউন্টারের বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেওয়া উচিত এবং অভিযুক্ত পুলিশদের শাস্তি দেওয়া উচিত।” বলেছিলেন দিগ্বিজয় সিং।

১৯ সেপ্টেম্বর পুলিশের জাল থেকে পালিয়ে যাওয়া দুজনকে পরে গ্রেপ্তার করা হয় এবং বিচার শেষে দুজনকেই সাজা দেওয়া হয়। অভিযুক্তদের মধ্যে একজনকে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়েছিল এবং এটি এনকাউন্টারটিকে মিথ্যা ভাবে করা হয়েছিল এমন অভিযোগগুলিকে নস্যাৎ করে দেয়।

এই IM-এর সাথে শ্যুট-আউটটি ছিল জন আব্রাহাম অভিনীত এবং নিখিল আদভানি পরিচালিত ২০১৯ সালের বাটলা হাউসের প্লট যেটি বক্স অফিসে একটি বড় সফল সিনেমা ছিল। চলচিত্রটির পটভূমিকায় ছিল সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পুলিশের তৎপরতা ও সময়মত হস্তক্ষেপের দ্বারা তাদের কে চিরতরে নিরস্ত করার সাহসিক কাহিনী এবং পরবর্তী কালে কিভাবে এই ঘটনা কে সাজানো বলে দাবি করে রাজনৈতিক টানাপোড়নের মুখে পরতে হয় তা নিয়ে পরে । অনেক রাজনৈতিক নেতা এবং স্বঘোষিত মানবাধিকার হোমরাচোমরারা “নিরীহ মুসলিম ছেলেদের” হত্যা করার জন্য পুলিশী পদক্ষেপের নিন্দা করতে দেখা গেছে যেখানে বাস্তব জীবনে বাটলা হাউস অঞ্চলটি ছিল ইসলামিক সন্ত্রাসীদের আশ্রয়স্থল।

যদিও খান্না বাটলা হাউসের ঘটনায় তার অবস্থানে অনড় থেকে রাজনৈতিক নেতাদের তিরস্কার করেছেন তাদের দ্বিচারিতার জন্য কিন্তু তিনি কমনওয়েলথ গেমস ২০১০ এর ঘোটালা ও কেলেঙ্কারী থেকে নিজেকে বিরত রাখার পথ বেছে নিয়েছেন যার মধ্যে তিনি লেফটেন্যান্ট গভর্নর হিসাবে আয়োজক কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি বলেছেন যে কমন ওয়েলথ গেমস ২০১০ একটি নির্ভেজাল পদ্ধতিতে সংগঠিত হয়েছিল এবং এটি বিশ্বব্যাপী প্রশংসা অর্জন করেছিল, অথচ তিনি সমস্ত দেশকে কাঁপিয়ে দিয়েছিল এমন দুর্নীতি এবং কেলেঙ্কারীর ঘটনাবলী সম্পর্কে নীরব। যদিও তিনি এই বিশাল ক্রীড়া যজ্ঞের ব্যবস্হাপণা এবং যে দ্রুতগতির সাথে সুবিধা ও পরিকাঠামো তৈরি করা হয়েছিল তা প্রকাশ করেছেন কিন্তু খান্না সিডব্লিউজি চুক্তি বরাদ্দের অনিয়মের ক্ষেত্রে সুরেশ কলমাডির গ্রেপ্তার এবং দশ মাস দীর্ঘ কারাবাস সম্পর্কে কিছু উল্লেখ করেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.