ব্যর্থ ইমরান খান, বকলমে নাকি সেনার হাতেই চলছে পাকিস্তানের সরকার

পাকিস্তানে সেনা শাসন নতুন নয়। প্রায় সাত দশকের ইতিহাস রয়েছে পাকিস্তানে সেনা শাসনের। কিন্তু ক্ষমতায় আসার পর নতুন পাকিস্তানের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন ইমরান খান। বর্তমানে অর্থনীতির যা পরিস্থিতি তাতে স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়ে গিয়েছে। ইমরান খানের জনপ্রিয়তা কমেছে সেইসঙ্গে। তাই ফের নতুন করে সেনাবাহিনী পাকিস্তানের ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

করোনা মহামারীর মধ্যেই পাকিস্তানের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পোস্টে জায়গা করে নিয়েছে প্রাক্তন ও বর্তমান সেনা অফিসাররা। এমনকি বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে অফিশিয়ালি না হলেও পাকিস্তান ইতিমধ্যেই জেনারেলদের কন্ট্রোলে চলে গিয়েছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ সম্প্রতি এই বিষয়ের উপর আলোকপাত করেছে। ওই সংবাদমাধ্যম দেখিয়েছে যে কিভাবে ক্রমশ সেনাবাহিনীর দখলে চলে যেতে বসেছে পাকিস্তানের প্রশাসন।

জানা যাচ্ছে পাকিস্তানের বিমান, বিদ্যুৎ পরিষেবা মতো জায়গায় এবং ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব হেলথ অন্তত একজন সেনা অফিসার দায়িত্ব পেয়েছেন। গত দু’মাসে এরকম অন্তত তিনটি নিয়োগ হয়েছে বলেও জানা গিয়েছে।

একদিকে পাকিস্তানের অর্থনীতি প্রায় তলানিতে। মূল্যবৃদ্ধি ও হচ্ছে চড়চড় করে। এই অবস্থায় ইমরান খান সরকারকে চাইছেন না অনেকেই। অনেক কিছু বদলে যাওয়ার আশা নিয়েই পাকিস্তানে যুবসমাজ ভোট দিয়েছিল ইমরান খানকে। কিন্তু প্রাক্তন ক্রিকেটার প্রধানমন্ত্রী হয়ে সেরকম কিছুই করে দেখাতে পারেননি

একথা অবশ্য অজানা নয় যে পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর প্রবল প্রভাব রয়েছে। প্রায় সত্তর দশক ধরে পাকিস্তানের শাসন চালিয়েছে সেনা।

বর্তমানে পাকিস্তানের করোনা সংক্রান্ত ব্রিফিংয়ের সময় দেখা যাচ্ছে টেলিভিশনে সহযোগিতা করছেন আর্মি অফিসারের। শুধু তাই নয় অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল অসীম সালিম বর্তমানে ইমরান খানের কমিউনিকেশন এডভাইজার। আর এসব থেকেই ইঙ্গিত ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে

এর মধ্যে আবার করাচিতে ছড়িয়েছে নতুন আতঙ্ক। করাচি জুড়ে নাকি ব্ল্যাক আউট। পাকিস্তানের এই শহরের আকাশে উড়ছে একের পর এক ভারতীয় যুদ্ধবিমান। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনটাই দাবি করেছেন একাধিক করাচির বাসিন্দা। অনেকেই ভেবেছেন, আবার একটা বালাকোট স্ট্রাইকের পথে ভারত।

মঙ্গলবার রাতেই এভাবে আচমকা আতঙ্ক ছড়ায়। পাকিস্তানিরা সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই সেকথা জানান। তাঁরা বলেন, করাচির আকাশে একের পর এক যুদ্ধবিমান উড়তে দেখা গিয়েছে। করাচির বেশ কয়েকজন বাসিন্দার দাবি, সীমান্ত পার করে নাকি ওইসব যুদ্ধবিমান ভারত থেকে করাচির আকাশে গিয়ে চক্কর কাটছে।

করাচিতে কেন ব্ল্যাক আউট হয়েছিল, তা জানা যায়নি। তবে ভয় পেয়ে ট্যুইটারে লিখতে শুরু করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। অনেকে ভাবেন ভারত ফের একবার বালাকোটের মত স্ট্রাইক চালাতে গিয়েছে।

অনেকে অবশ্য লিখেছেন যে ওগুলো আসলে পাকিস্তানেরই যুদ্ধবিমান। সলমন মনজুর নামে এক ব্যক্তি ভিডিও শেয়ার করে লিখেছেন ওগুলো আসলে পাক বিমান বাহিনীর JF17 Thunder ও Mirage.

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.