ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের স্বেচ্ছাসেবকদলের ওপরে ত্রাণ কাজ চলাকালীন হামলা চালালো গুন্ডাদল – অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

বন্যা হোক, খরা হোক বা ভূমিকম্প , দেশের মানুষের ওপর যখনই কোনো দূর্যোগ ঘনিয়ে এসেছে, প্রণবানন্দজী মহারাজ প্রতিষ্ঠিত ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘ (Bharat Sebashram Sangh) নিজেদের সর্বস্ব উজার করে পীড়িত মানুষের সেবার নিজেদের নিয়োজিত করেছেন। লকডাউনের মাঝে দুঃস্থ মানুষদের জন্য ত্রাণ বিলি করছিলেন ভারত সেবাশ্রম সংঘের কর্মীরা। সেই সময়ে আচমকাই তাদের ওপরে হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ।

করোনার (Corona) করাল গ্রাস থেকে দেশবাসীকে সুরক্ষিত রাখতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণা করেছেন। দিন আনা দিন খাওয়া মানুষেরা অথৈই জলে পড়েছেন। যদিও কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকার উভয়েই এদের পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা করেছেন, তবে বাস্তবে এই রাজ্যের নিরন্ন মানুষের কাছে প্রয়োজনের তুলনায় খাদ্য পৌঁছেছে যৎসামান্য

এই অবস্থায় ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘ এই আর্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেবালীগঞ্জস্থিত (Baliganjs) সঙ্ঘের মূল কার্যালয় থেকে প্রতিদিন ৩০০০০(ত্রিশ হাজার) মানুষের মধ্যে ভাত ও তরকারী বিতরণ করা হচ্ছে বাইপাস সন্নিহিত নোনা ডাঙ্গা পোড়া বস্তি,মাতঙ্গিনী হাজরা কলোনী, পঞ্চান্ন গ্রাম, চায়না বস্তি টেম্পল, ভাই ভাই ক্লাব এলাকার বস্তি, ধাপা এলাকা, বালীগঞ্জ স্টেশন, জামিরলেন, ব্যান্ডেল গেট, কালীঘাট, টালিগঞ্জ ও দক্ষিণ কলকাতার বিভিন্ন পথবাসী এলাকায়।

সঙ্ঘের সব শাখা মিলিয়ে প্রতিদিন প্রায় ৬০০০০ নিরন্ন মানুষের মুখে অন্নের যোগান পৌচ্ছে যাচ্ছে। সঙ্ঘের শাখা সমূহ – বর্ধমান, দূর্গাপুর, ডায়মন্ড হারবার, বাজিতপুর বনগাঁ, হোড়খালি , ডোকরা, তিত্তর, শিলিগুড়ি, মালদা, পুরুলিয়া, আলিপুরদুয়ার ও শতাধিক মিলন মন্দির সহ দিল্লী, মুম্বাই, হরিদ্বার, জম্মু কাশ্মীর, বারাণসী , গয়া , হায়দরাবাদ, পুষ্কর, আমেদাবাদ, কলোল ইত্যাদি শাখা থেকেও বুভুক্ষু মানুষের মধ্যে চাল, ডাল, আলু, তরকারী বিতরণ করা হচ্ছে।

কিন্তু সেই অজাতশত্রু ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘও আজ সেবাকার্য করতে গিয়ে আজ আক্রান্ত

মহারাষ্ট্রের (Maharashtra) পালঘরের ঘটনার পরেও সর্বত্যাগী হিন্দু সাধু সন্ন্যাসীদের ওপর নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে এবং তা এই বঙ্গে। সোমবার ২৭/০৪/২০ তারিখে ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের স্বেচ্ছাসেবকদের ওপর এক বর্বোরোচিত হামলা করা হয় কসবার একটি ক্লাবের পাশে।

এই নিন্দনীয় ঘটনা ঘটে, যখন ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের সন্ন্যাসীরা স্বেচ্ছাসেবকদলের সাথে ঐ এলাকার অভুক্ত পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য খাদ্যসামগ্রী নিয়ে ঐ এলাকায় পৌছান।

সুপরাজ ঘোষ (Supraj Ghosh) , সিম্টন মান্না প্রমুখদের মতো কয়েকজন কোভিড ১৯ ত্রাণ কাজে নিয়োজিত ছিলেন বিগত বেশ কয়েক সপ্তাহ। তাঁরা সকলেই ভারত সেবাশ্রম সংঘের নেতৃত্বে ত্রাণ কাজের জন্য স্বেচ্ছাসেবক হয়েছিলেন।

২৭শে এপ্রিল, সোমবার সকাল ১০.৩০ টার দিকে, উক্তব্যক্তিরা শ্রী সঞ্জিব বোস (Mr. Sanjeev Bose) এবং শ্রী পরিতোষ ভৌমিকের (Shri Paritosh Bhowmik) সাথে এলাকার দরিদ্র জনগণকে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করতে কসবার ঐ ক্লাবে যান। খাবারের যে সামগ্রী ছিল তাতে ভারত সেবাশ্রম সংঘ স্পনসর করছে তা উল্লেখ ছিল এবং তাঁরা যে সবাই সংঘের তার সহজ শনাক্তকরণের জন্য প্রদত্ত ব্যাচও পরেছিলেন। এমনকি বিতরণ ভ্যানেটিতে পরিষ্কারভাবে উল্লেখ ছিল যে ত্রাণ সামগ্রীটি ভারত সেবাশ্রম সংঘ-এর তরফ থেকে দেওয়া হচ্ছে



তাঁরা খাদ্যসামগ্রী বিতরণ শুরু করতেই স্থানীয় ৬৭ নং ওয়ার্ডের পুরপিতা শ্রী বিজনলাল মুখার্জি (Shri Bijanlal Mukherjee) আশ্রিত সুরজিৎ রায় (Surjit Roy) ও তার গুন্ডাদল তাঁদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তাঁদের শারীরিকভাবে মারাত্মক নিগ্রহ করে। এমনি তাঁদের বিজেপি সমর্থক বলে রাজনৈতিক রং দেওয়ারও চেষ্টা করে।

এমনকি তাঁরা যদি ভবিষ্যতে এরকম কাজ করেন, তাহলে তার ফল ভয়ানক হবে বলে হুমকি দেওয়া হয়। বিষয়টি উক্ত স্বেচ্ছাসেবকবৃন্দ বিএসএসের সাধারণ সম্পাদক পূজনীয় দিলীপ মহারাজের (Dilip Maharaj) কাছে জানান। মহারাজ নিগৃহীত স্বেচ্ছাসেবকদের বিএসএস ক্লিনিকে চিকিৎসা করান এবং ফিরে যাওয়ার জন্য পরিবহনের ব্যবস্থাও করে দেন।

এমতাবস্থায়, উক্ত স্বেচ্ছাসেবকবৃন্দ এই প্রতিবেদনে উল্লিখিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ এবং তাঁদের ও তাঁদের পরিবারের সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য প্রশাসনকে অনুরোধ করেছেন। কারণ তাঁদের উপর আরও হামলার হুমকি দেওয়া হয়েছে।

বিধর্মীদের হাত থেকে হিন্দু সমাজকে রক্ষা করতে প্রণবাণন্দ মহারাজ রক্ষীদল গঠনের প্রেরণা দিয়েছিলেন, কিন্তু দুঃখের বিষয় আজ স্বধর্মীয় গুন্ডাদের হাতে তারই অনুগামীদের লাঞ্ছিত হতে হলো। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত প্রশাসনিক কোনো উদ্যোগ এর খবর পাওয়া যায় নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.