ভিডিয়ো: কমনওয়েলথ গেমসে সোনাজয়ী সিন্ধুর জন্য হিন্দিতে কোরিয়ান কোচের গুরুমন্ত্র, ‘আরাম সে’

বার্মিংহ্যাম কমনওয়েলথ গেমসের মিক্সড টিম ইভেন্টে ভারত রুপো জেতার পরে পিভি সিন্ধুর সঙ্গে তাঁর কোরিয়ান কোচ পার্ক তায় সাং সোশ্যল মিডিয়ায় একটি ছবি পোস্ট করেন। ক্যাপশনে তিনি লেখেন, ‘সত্যি বলতে আমি রুপোর রংটা পছন্দ করি না।’ সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতে সিন্ধু পদকের রং বদলে নেন। ওমেনস সিঙ্গলসে সোনা জিতে সঙ্গত কারণেই উচ্ছ্বাসে ভাসেন পুসারলা।

সিন্ধুর উচ্ছ্বসিত হওয়াটাই স্বাভাবিক। কেননা, এর আগে গ্লাসগো কমনওয়েলথ গেমসের সিঙ্গলসে তিনি ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন। গোল্ড কোস্ট কমনওয়েলথে জেতেন রুপো। এই প্রথমবার তিনি কমনওয়েলথ গেমসের সিঙ্গলসে সোনা জেতেন। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে কোচের সঙ্গে সেলিব্রেট করতে দেখা যায় সিন্ধুকে।

২০১৯ থেকে সিন্ধুর কোচের দায়িত্ব পালন করা পার্কও ছাত্রীর এমন সাফল্যে যারপরনাই খুশি। পিভি গোল্ড মেডেল জেতার পরে তিনি নিজের উচ্ছ্বাসটা লুকিয়েও রাখেননি। তবে কথায় কথায় সাং জানিয়ে দেন, খেলার মাঝে সিন্ধু হতাশ হয়ে পড়লে তিনি কীভাবে তাঁর মাঠা ঠান্ডা করেন এবং কী বলে তাঁকে উদ্দীপ্ত করার চেষ্টা করেন।

এতগুলো দিন সিন্ধুর কোচ থাকার সুবাদে পার্ক কিছু হিন্দি শব্দ শিখেছেন। তেমনই একটি হিন্দি শব্দবন্ধ তিনি ব্যবহার করেন সিন্ধুকে চাপমুক্ত করার জন্য। পার্ক বলেন, ‘সেই টোকিও থেকে আমি খেলার মাঝে কেবল হিন্দিতে বলি, ‘আরাম সে’। পরপর পয়েন্ট হারালে সিন্ধু অনেক সময় হতাশ হয়ে পড়ে। গেম শেষ হয়ে যায় না, তবু ও হতাশ হয়। তেমন মুহূর্তে আমি বলি, ‘সিন্ধু, আরাম সে। ম্যাচ এখনও শেষ হয়নি। তুমি ঘুরে দাঁড়াতে পারবে। অপেক্ষা করো। প্রতিপক্ষ তোমাকে সুযোগ দেবেই। হতাশ হয়ে পোড়ো না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.