এক মরশুমে ১০টি T20 ম্য়াচ জিতে নয়া নজির শাকিবদের

শুভব্রত মুখার্জি: ২০২১ সালটা আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে বাংলাদেশ দলের জন্য বেশ ভাল কাটছে। বিশ্বকাপের শুরুতে স্কটল্যান্ডের কাছে হোঁচট খেলেও, ওমানের বিরুদ্ধে জিতে তারা সুপার-১২ তে যাওয়ার সম্ভাবনা উজ্জ্বল করেছে। আর এই ওমান ম্যাচ জয়ের মধ্যে দিয়েই টাইগাররা তাদের টি-২০ ইতিহাসে গড়ে ফেলেছেন এক নয়া নজির। চলতি মরসুমে প্রথমবার বাংলাদেশ কোনও এক ক্যালেন্ডার বর্ষে ১০টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচ জিততে সমর্থ হয়েছেন। এর আগে ২০১৬ সালে তারা সব থেকে বেশি ৭টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচ এক ক্যালেন্ডার বছরে জিততে সমর্থ হয়েছিল।

উল্লেখ্য বিশ্বকাপের আগেই ঘরের মাঠে মিরপুরে শাকিব আল হাসানরা শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়া দল এবং নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে তাঁদের ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম বার টি-২০ সিরিজ জিততে সক্ষম হয়েছিল। সেই জয়ের ধারা সঙ্গে করেই বাংলাদেশ পা রেখেছিল টি-২০ বিশ্বকাপের কোয়ালিফায়ারে। তবে তাদের শুরুটা একেবারেই ভাল হয়নি। স্কটল্যান্ডের কাছে তাদের হারতে হয়েছিল ৬ রানে।ট্রেন্ডিং স্টোরিজ

এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে যখন কার্যত তাদের দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছিল। ওমানের বিরুদ্ধে ডু অর ডাই ম্যাচে তাদের জিততেই হত পরের রাউন্ডে যেতে গেলে। সেই ম্যাচে তারা কার্যত চ্যাম্পিয়ান দলের মত খেলে সব আশঙ্কার মেঘ আপাতত কাটিয়ে দিয়েছে। ওমানের বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে রানের মধ্যে ফিরেছেন বাংলাদেশের তারকা ক্রিকেটার শাকিব আল হাসান।

বল হাতে দুরন্ত পারফরম্যান্স করেছেন মাহেদি হাসান। ফলে দিনের শেষে তারা বড় জয় তুলে নিতে সক্ষম হয়েছে। তাদের পরবর্তী ম্যাচে তারা পাপুয়া নিউগিনির বিরুদ্ধে জিতলেই পৌঁছে যাবে সুপার -১২-তে। বিশেষজ্ঞদের মতে কোন অঘটন না ঘটলে পরের পর্বে যাওয়া এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। তবে সুপার-১২ তে ওঠার পরে মাহমুদুল্লাহ বাহিনীর দলের গভীরতার পরীক্ষা প্রায় প্রতি ম্যাচেই দিতে হতে পারে বলে মত ক্রিকেট মহলের একাংশের।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.