১০ ই অক্টোবর এক ঐতিহাসিক জাতীয়তাবাদী ট্রেড ইউনিয়নের নেতা এবং ভারতীয় মজদুর সংঘের প্রতিষ্ঠাতা, স্বদেশী জাগরণ মঞ্চ, ভারতীয় কৃষক ইউনিয়নের অন্যতম ব্যক্তি শ্ৰী দত্তোপান্ত ঠেঙ্গরির জন্মদিন। তাঁকে শ্রদ্ধা জানানোর উদ্দেশ্যে রাজস্থানের চিতোরে আজ সকাল ১০.৩০ ঘটিকায় ভারতীয় কিসান সঙ্ঘ শ্ৰী দত্তপান্ত মহাশয়ের জন্ম শতাব্দী সমাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। অনুষ্ঠানের মুখ্য বক্তা ছিলেন পরমপূজনীয় সঙ্ঘচালক শ্ৰী মোহনরাও ভাগবত।

https://economictimes.indiatimes.com/topic/Dattopant-Thengadi

অতিমারীর কারণে সেই অনুষ্ঠান বৃহৎভাবে করা সম্ভব হয় নি ,তবুও অনুষ্ঠানের ভাবনায় , মননে ভারতের মাটির গন্ধ , শ্ৰী দত্তপন্ত মহাশয়ের প্রতি শ্রদ্ধায় পরিপূর্ণ ছিল।

ভবিষ্যতের শতাব্দীটিকে বলা হবে “হিন্দু শতাব্দী”….একজন আধুনিক প্রতিভাশালী দার্শনিক শ্ৰী দত্তপন্ত ডাঃ হেডগেওয়ার, শ্রী গুরুজি এবং পন্ডিত দীনদয়াল উপাধ্যায়ের আদর্শিক উপাখ্যানগুলিতে বিশ্বাসের সংজ্ঞা দিয়েছিলেন । যিনি শ্রমিক ও কৃষকদের কল্যাণমূলক কাজের সূত্র তৈরি করেছেন ; এক স্বপ্নদর্শী , যিনি কবি ও ব্যাসঙ্গী পণ্ডিত ছিলেন। তাঁর চৌম্বকীয় প্রকৃতি এবং সাহসিকতার সমন্বয়কারী বহুপাক্ষী কর্মকান্ড সমুদ্রকে ভরাট করার চেষ্টা করার মতো, এই সমস্ত ভাষণকে সার্থক করে তোলে । সেই দত্তপান্ত মহাশয়ের সম্পর্কে একটু সংক্ষিপ্ত পরিচয় দেওয়া যাক।

শ্রী দত্তোপান্ত ঠেঙ্গরি (দত্তাত্রেয় বাপুরাও ঠেঙ্গরি) আরভি (ওয়ার্দা, মহারাষ্ট্র) মহারাষ্ট্রের ১০ নভেম্বর, ১৯০২ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি আইনজীবী এবং দার্শনিকও ছিলেন এবং প্রশাসনের প্রথম দিকের প্রতিভা প্রদর্শন করেছিলেন। মাত্র ১৫ বছর বয়সে তিনি ‘vanar sena ‘ এর প্রেসিডেন্ট ছিলেন , পাশাপাশি আরভিতে পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছিলেন এবং ১৯৩৬-৩৮ সাল পর্যন্ত হিন্দুস্তান সমাজতান্ত্রিক রিপাবলিকান অ্যাসোসিয়েশনের (এইচএসআরএ) সদস্য ছিলেন। তিনি ১৯৫০-৫১ সাল পর্যন্ত ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ট্রেড ইউনিয়ন কংগ্রেসের (আইএনটিইউসি) সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে কাজ করেছিলেন এবং [ডাক] রেলওয়ে ও শ্রমিক শ্রমিক ইউনিয়নের (কমিউনিস্ট পার্টি) সাথেও যুক্ত ছিলেন। তিনি গভীরভাবে দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল। মাধবরাও সদাশিবরাও গোলওয়ালকর, যিনি গুরুজি হিসাবে খ্যাত, তাঁর দ্বারা প্রভাবিত ছিলেন। সমসাময়িক কালে আরও কিছু প্রখর ব্যক্তিত্ব ছিলেন- বাবা সাহেব আম্বেদকর এবং দীনদয়াল উপাধ্যায়। তিনি সর্বদা সময়ের সাথে তাল মিলিয়েছিলেন বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিভিন্ন সংগঠন নিয়ে, এবং হিন্দু ধর্ম এবং ভারতীয় দর্শনের মূল দর্শন বজায় রেখে কাজ করেছিলেন।

শ্ৰী ঠেঙ্গরি আজকের কিছু নামী সংগঠন প্রতিষ্ঠা , লালন ও খ্যাত করেছেন: যথা – ভারতীয় মজদুর সংঘ (১৯৫৫), ভারতীয় কিষাণ সংঘ (১৯৭৯), স্বদেশী জাগরণ মঞ্চ (১৯৯১), সামাজিক সমরতা মঞ্চ, সর্ব-পন্থ সমাদর মঞ্চ ও পরিবর্তন মঞ্চ; অখিল ভারতীয় ছাত্র পরিষদ, অখিল ভারতীয় আধিকারিক পরিষদ, অখিল ভারতীয় গ্রাহক পঞ্চায়েত এবং ভারতীয় বিচার কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য।

তিনি ১৯৬৪-৭৬ দুটি মেয়াদে রাজ্যসভার সদস্য ছিলেন। তিনি ১৯৬৮-৭০-এ ভাইস-চেয়ারম্যান হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেছিলেন। সংসদ সদস্য হিসাবে তিনি যে সমস্ত কাজ পরিচালনা করেছিলেন , সবসময়ের জন্য তার অদম্য ছাপ রেখে গেছেন। শ্রী ঠেঙ্গরি ১৯৭৫ সালে এমার্জেন্সি পিরিয়ড বিরোধী আন্দোলন পরিচালনা করে বিভিন্ন রাজনৈতিক প্রবাহকে একত্রিত করে তাঁর নেতৃত্বের সক্ষমতা প্রদর্শন করেন।

তিনি বহুল পর্যটনকৃত মানুষ ছিলেন। সমগ্র ভারতে তিনি প্রায় প্রতিটি জেলা, উপজেলা এবং গ্রাম ভ্রমণ করেছিলেন। তিনি বিদেশের মাটিতেও সফর করেছিলেন, যার মধ্যে রয়েছে- সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং হাঙ্গেরি । একটি সংসদীয় প্রতিনিধি দলের সদস্য হিসাবে (১৯৬৯) জেনেভা যান। পরের বছর সুইজারল্যান্ডের জেনেভাতে দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক বর্ণবাদ বিরোধী সম্মেলনে অংশ নিতে (১৯৭৯)। ট্রেড ইউনিয়ন আন্দোলনে উদারীকরণের প্রভাব ইস্যুতে ১৯৭৯ সালে তাঁকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ব্রিটেন এবং যুগোস্লাভিয়ায় আমন্ত্রিত করা হয়। তাঁর প্রত্যয় , তাঁর দৃঢ়তা তাঁকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে চীন, জাকার্তা, বাংলাদেশ, বার্মা, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, কেনিয়া, উগান্ডা এবং তানজানিয়ায় নিয়ে গেছে।

সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ইস্যুতে কেবল তিনি বিশেষজ্ঞই ছিলেন না , তিনি একজন বুদ্ধিমান বক্তাও ছিলেন। তিনি নরম কিন্তু বলপূর্বক ইস্যুগুলির উপস্থাপনা শ্রোতাদের মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখতেন। পুঁজিবাদ ও সমাজতন্ত্রের উভয় মডেলের বিকাশ ঘটিয়ে তিনি ‘সনাতন ধর্ম’ আদর্শের ভিত্তিতে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ‘তৃতীয় উপায়’ প্রবর্তন করেছিলেন। তিনি অনেকগুলি বই রচনা করেছিলেন যা কেবল তাঁর আদর্শিক প্রত্যয় থেকে নয় বরং তাঁর অভিজ্ঞতা থেকেও বেড়েছে।

তাঁর কয়েকটি বহুলভাবে পড়া এবং উল্লেখ করা রচনাগুলি: The Third Way; Modernization Without Westernization; What Sustains Sangh?, Our National Renaissance, It’s Directions and Destination; Nationalist Pursuit; The great sentinel and The Perspective.

২০০৪ সালের ১৪ ই অক্টোবর এই মহাজীবনের অবসান ঘটে। তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে বহু নেতা নানা উজ্জ্বল অধ্যায়কে তুলে ধরেছিলেন। তেমনি কিছু বক্তব্য নীচে পেশ করলাম।

Atal Bihari Vajpayee, Ex Prime Minister of India:

“I have had long association with Thengadiji. I was present in the Bhopal meeting in which the decision to form the BMS was taken. During the discussion to decide the name of the new organisation, Thengadiji had suggested the name Shramjivi Sangathan. The name Bharatiya Mazdoor Sangh was coined keeping in view the fact that the name should be simple and meaningful. I feel trade unionism is facing a crisis today. We have before us two paths, one of these is on the way out. There is a need to find out the third one. Workers’ interests should be protected but at the same time the nation’s interest too must be borne in mind. The workers’ movement is in a crisis and how to balance things in a changing scenario should be considered using the third way out, which was what Thengadi had been attempting. Whatever Thengadiji has written should be read by all of us. I feel it will guide us for long.”

Ashokjee (Ashok Singhal), International Working President of Vishva Hindu Parishad:

With the death of Dattopantji we all have become orphans. He was a messiah of poor and farmer. There are certain great personalities whose loss can never be filled. Dattopantji was a similar great personality. He had original thinking on all spheres of life. His mother and Shri Guruji were his guides. At the time when the country is facing onslaughts from all sides, the void left by Dattopantji will be felt greatly.

L.K. Advani, Ex Deputy Prime Minister of India

I have had close relations with Dattopantji for the last 50 years. If one has to explain the personality of Dattopantji in one sentence, we can say that he was a dedicated Rashtrasevak.He lived his whole life as a karmayogi. The work he took up he aimed it out with full responsibility. He established a wide network of friends without compromising on his views and ideology. His thinking was not confined to labourers or economic issues alone it involved the entire life of the nation and the world. His death is a personal loss to me. A strong pillar of our work is no more.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.