সম্প্রতি ইউনেস্কো অর্থাৎ জাতিসংঘের শিক্ষা, বৈজ্ঞানিক ও সাংস্কৃতিক সংস্থা (ইউনেস্কো) তেলেঙ্গানার রামাপ্পা মন্দিরকে 2021 সালের 25 জুলাই বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে ঘোষণা করেছে

সম্প্রতি ইউনেস্কো অর্থাৎ জাতিসংঘের শিক্ষা, বৈজ্ঞানিক ও সাংস্কৃতিক সংস্থা (ইউনেস্কো) তেলেঙ্গানার রামাপ্পা মন্দিরকে 2021 সালের 25 জুলাই বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে ঘোষণা করেছে। এটি চীনের ফুজৌতে বিশ্ব ঐতিহ্য কমিটির 44 তম অধিবেশনে ঘোষণা করা হয়েছিল। ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ’ অর্থ পৃথিবীতে সেই জায়গাগুলি, যার অতুলনীয় চিরন্তন মূল্য রয়েছে এবং যা মানবজাতির তাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সংরক্ষণ করতে হবে।


কাকতিয় যুগের গৌরবের এই উদাহরণটি 1234 খ্রিস্টাব্দে নির্মিত। মুলুগু জেলার পালাম্পেটে 800 বছরের পুরানো এই পুরো মন্দির কমপ্লেক্সটি স্থাপত্য সহ অনেক ক্ষেত্রেই অনন্য। আসুন জেনে নিই, এই মন্দিরের 7 টি অনন্য বৈশিষ্ট্য, যা এটিকে বিশেষ করে তোলে…


1) মন্দিরটি কারিগর নামে পরিচিত, যিনি এটি নির্মাণ করেছিলেন। এই মন্দিরটি কাকতিয়া রাজা গণপতি দেবের আমলে নির্মিত হয়েছিল। আর যিনি তৈরি করেছিলেন সেই কারিগরটির নাম ছিল রামাপ্প সাতপ্যাথি। এজন্য এই পুরো কমপ্লেক্সটিকে রামাপ্পা টেম্পল গ্রুপ বলা হয়। এর প্রধান প্যাগোডা রুদ্রেশ্বর মন্দির নামে পরিচিত। রুদ্রেশ্বর কারণ এটি কমান্ডার রেচারলা রুদ্রের তত্ত্বাবধানে নির্মিত হয়েছিল। অর্থাৎ রাজার বদলে কারিগর ও সেনাপতির কৃতিত্ব!


2) ভাসমান ইট দিয়ে তৈরি! মন্দিরে ব্যবহৃত ইটের ওজন খুবই কম। প্রত্নতাত্ত্বিকরা (প্রত্নতাত্ত্বিক) বলছেন যে, সাধারণ মন্দিরের পরিবর্তে, এই মন্দিরে, বেলেপাথরের মতো উপাদান দিয়ে তৈরি এমন হালকা এবং স্পঞ্জি ইট ব্যবহার করা হয়েছে বিশেষ প্রযুক্তির সাহায্যে যা জলেতে ভাসতে পারে। এটি সেই সময়ের ভারতের উন্নত প্রযুক্তির একটি উদাহরণ।


৩) দুয়ার রক্ষক নন্দী! এই মন্দিরের আরেকটি আকর্ষণ হল নন্দী মণ্ডপে বসে নন্দী। যিনি খুব সচেতন ভাবে শিবলিঙ্গের মুখোমুখি বসে আছেন। যদিও প্রায়শই প্যাগোডায় এ জাতীয় ভঙ্গিতে কোনও নন্দি থাকে না। এই সজাগ নন্দীকে অলঙ্কার দিয়ে এত সুন্দরভাবে সজ্জিত করা হয়েছে যে এর শিরাগুলিও দৃশ্যমান। আরেকটি আশ্চর্যজনক বিষয় হল এই মন্দিরে নয় ফুট উঁচু শিবলিঙ্গ রয়েছে।


4) দেয়ালে রামায়ণ এবং শিব পুরাণ থেকে গল্প! এই দুর্দান্ত গ্রন্থগুলি ছাড়াও, আরও অনেক গ্রন্থ দ্বারা অনুপ্রাণিত দৃশ্যগুলি মন্দিরের গর্ভগৃহ এবং দেয়ালের উপর খোদাই করা। অর্থাৎ, এই গ্রন্থগুলির কাহিনীগুলি পাথরের উপর জীবন্ত আনা হয়েছে। নর্তকী ও পৌরাণিক প্রাণীদের মূর্তিগুলি মন্দিরে প্রচুর সংখ্যায় রয়েছে এবং এটি আকর্ষণীয় এবং জীবন্ত।


5) সুন্দর এবং সুন্দর স্তম্ভ! শুধু মন্দিরের দেয়াল ও সিলিং নয়, এর স্তম্ভের সুন্দর কারুকার্য এবং তার উপর তৈরি প্রতিমাগুলিও সুন্দর নকশার উদাহরণ। একই সময়ে, এই স্তম্ভগুলি আঘাত করার সময়, বাদ্যযন্ত্র নোটগুলি বেরিয়ে আসে।


6) 40 বছর কঠোর পরিশ্রম! তেলেঙ্গানা সরকারের ওয়েবসাইট অনুযায়ী, এই মন্দির কমপ্লেক্সটি তৈরি করতে প্রায় চল্লিশ বছর লেগেছে।


7) এমনকি ভূমিকম্পেও নিরাপদ! সপ্তদশ শতাব্দীতে এই এলাকায় শক্তিশালী ভূমিকম্প হয়েছিল। যার কারণে এটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল কিন্তু তার ‘স্যান্ডবক্স টেকনিক’ ফাউন্ডেশনের প্রযুক্তির কারণে, এই মন্দিরের প্রধান অংশ টিকে আছে।
এই তালিকায় এটি ভারতের 39 তম ঐতিহ্য। এতে অংশ নেওয়া গৌরব, যা কেবল তেলঙ্গানারই নয়, ভারতের পক্ষেও একটি দুর্দান্ত অর্জন।

Source:
https://www.batangad.com/7-unique-facts-about-unesco-world-heritage-ramappa-rudreshwara-temple-telangana/