প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রথম চার দফার নির্বাচনে সারা দেশে ৮৭টি জনসভা এবং ৩টে বড় রোড-শো করেছেন৷ প্রথম ৩১ দিনে মোদীর জনসভায় একটি সুস্পষ্ট পরিকল্পনা লক্ষ করা গিয়েছে৷ সারা দেশেই মোদী জনসভা করছেন জাতীয়তাবাদকে ইস্যু করে৷ তবে নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা বলছেন মোদীর প্রচারের ৫০ শতাংশ – উত্তরপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, মহারাষ্ট্র, ওড়িশা এবং গুজরাটেই হয়েছে৷

কারণটা পরিষ্কার – মোদী মনে করেছেন ওই রাজ্যগুলিই তাকে ফের ক্ষমতায় ফিরিয়ে আনবে৷ বিজেপি এবং মোদীর কাছে পরিষ্কার দাক্ষিণাত্যে কর্ণাটক ছাড়া অন্যান্য রাজ্যে পদ্ম শিবিরের মহা পতন হতে চলেছে৷ হয়তো সেই করাণেই অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলেঙ্গানা, তামিলনাড়ু এবং কেরলে মাত্র ৮টি জনসভা করেছেন মোদী৷

কিন্তু অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গে ইতিমধ্যেই ৮টি জনসভা করে ফেলেছেন মোদী৷ প্রতিটি জনসভায় বিপুল জনতা ভিড় জমিয়েছে৷ ওই জনসভাগুলি থেকে মোদী কড়া ভাষায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করেছেন৷ মোদীকে বলতে শোনা গিয়েছে, ইনি যে যাবেন তা ঠিক হয়ে গিয়েছে৷ ‘‘বাঙ্গাল কা জনতা কা মু মে দিদি আগর মোদী-মোদী শুনেগা … তো দিদি কা তো নিকাল যায়েগা৷’’পশ্চিমবঙ্গ, বিহার এবং উত্তরপ্রদেশে ৭ দফা নির্বাচন৷ ইতিমধ্যেই এই রাজ্যগুলিতে মোদী গিয়েছেন৷

উত্তরপ্রদেশে ১২টি জনসভা করার কথা মোদী তবে সংখ্যাটা বাড়ার সম্ভাবনাই বেশি৷ ইতিমধ্যেই ৮০টির মধ্যে ৪০টি আসনে সেখানে নির্বাচন হয়ে গিয়েছে৷ পশ্চিমবঙ্গে ৪২টি আসেন মধ্যে ১৮টি আসনে নির্বাচন হয়ে গিয়েছে৷ মোদী ইতিমধ্যেই ৮টি জনসভা করে ফেলেছেন৷ আরও জনসভা যে হবে তা রাজ্য বিজেপি আগাম জানিয়ে রেখেছে৷ মহারাষ্ট্রে ৯টি সভা হয়ে গিয়েছে৷ কর্ণাটকে ৭টি সভা হয়েছে৷ গুজরাটেও ৭টি সভা হয়েছে৷ ওড়িশায় ৮টি সভা এবং রোড-শো হয়েছে৷

জনসভায় নিজের ভাষণে মূলত বিরোধী জোটকে আক্রমণ করতে চেয়েছেন মোদী৷ তিনি বলতে চেয়েছেন – তার বিরুদ্ধে সংগঠিত জোটে মহামালাওটি বা মহাভেজাল৷ পশ্চিমবহঅগে এনআরসি এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ করছেন মোদী৷ অন্যদিকে ওড়িশায় বিজেপি জনতা দলকে দূর্নীতি এবং উন্নয়নের প্রশ্নে বিঁধছেন তিনি৷ মহারাষ্ট্রে কংগ্রেস-এনসিপি জোটকে বিজেপি-শিবসেনা জোট উন্নয়ন এবং জাতীয়তাবাদের প্রশ্নে আক্রমণ করছে৷ গুজরাটেও একই ইস্যু রয়েছে৷

উত্তরপ্রদেশ এবং বিহারে বিজেপি বিরোধী জোটকে কড়া আক্রমণ করছেন মোদী৷ বাংলা এবং উত্তরপ্রদেশ – এই দুই রাজ্যে ‘বুয়া-ভাতিজা’ মোদীর চরম পতিপক্ষ৷ উত্তরপ্রদেশে – মায়াবতী-অখিলেশ এবং বাংলায় মমতা-অভিষেক গেরুয়া শিবিরের নিশানায় রয়েছেন৷ অন্যদিকে দেখা যাচ্ছে, তামিলনাড়ু, তেলেঙ্গানা, অন্ধ্রপ্রদেশ এবং কেরলে মাত্র দুটি করে সভা মোদী করেছেন৷

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.