ফের ছাত্র বিক্ষোভে উত্তাল হল জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়াদের বিরুদ্ধে বেনজির অভিযোগ করলেন জেএনইউ উপাচার্য। জোর করে তাঁর বাড়িতে ঢুকে তাঁর স্ত্রীকে আটকে রাখার অভিযোগ করলেন জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এম জগদীশ কুমার। উপাচার্যের অভিযোগ, সোমবার সন্ধ্যায় এই ঘটনাটি ঘটেছে। উল্টো দিকে পড়ুয়াদের অভিযোগ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির জন্য অনলাইন ব্যবস্থা চালুর প্রতিবাদে কোনও আলোচনায় বসেননি উপাচার্য। বিষয়টি নিয়ে দেখা করতে গেলে পড়ুয়াদের কথা না শুনে মিষ্টি খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই শিক্ষাবর্ষ থেকে প্রবেশিকা চালু হওয়া অনলাইন সিস্টেমের বিরুদ্ধে গত সপ্তাহ থেকে সাত ছাত্র অনশন ধর্মঘট চালিয়ে যাচ্ছেন।

এই ঘটনার সূত্র ধরেই বামপন্থী ছাত্র সংগঠনের বেশ কিছু পড়ুয়া উপাচার্যের বাড়িতে গিয়েছিলেন বলে খবর। সেই সময় উপাচার্য বাড়িতে ছিলেন না। পরিস্থিতি ক্রমশ উত্তপ্ত হতে থাকে। ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয় পুলিশ। বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য অধ্যাপকদের স্ত্রীরা বাড়ির ভেতরে ঢুকে উপাচার্যের স্ত্রীকে বাড়ির বাইরে নিয়ে আসেন। এই পরিস্থিতিতে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন উপাচার্যের স্ত্রী। সেই কারণে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

উপাচার্য টুইটারে ছাত্রদের উদ্দেশ্যে লেখেন, “পড়ুয়ারা যখন আমার বাড়িতে যায় তখন আমি একটি বৈঠক করছিলাম। একজন একা মহিলাকে ভয় দেখানো, আটকে রাখা কোন ধরনের প্রতিবাদের পথ।”

অন্যদিকে উপাচার্যের বাড়িতে থাকা নিরাপত্তারক্ষীদের বিরুদ্ধে মারধর করার অভিযোগ তুলেছেন পড়ুয়ারা। এক ছাত্র জানান, তারা কথা বলতে গিয়েছিলেন কিন্তু উপাচার্য বাড়ির নিরাপত্তা রক্ষীরা তাদের মারধর করেছেন।

ঘটনায় জেএনইউ ছাত্র সংসদ সভাপতি এন সাই বালাজি সহ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.