ওমিক্রনের বিরুদ্ধে করোনা টিকার ২ ডোজে কম অ্যান্টিবডি: অক্সফোর্ডের গবেষণা

করোনাভাইরাসের নয়া প্রজাতি ওমিক্রনের বিরুদ্ধে টিকা কতটা কার্যকরী, তা নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে।

ওমিক্রনের বিরুদ্ধে অ্যাস্ট্রোজেনেকা এবং ফাইজারের করোভাইরাস টিকার কার্যকারিতা কিছুটা কম। এমনটাই উঠে এল অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায়। ওই গবেষণা অনুযায়ী, ওমিক্রনের বিরুদ্ধে তুলনামূলকভাবে কম অ্যান্টিবডি তৈরি করে অ্যাস্ট্রোজেনেকা এবং ফাইজারের করোভাইরাস টিকার দুটি ডোজ। সংবাদসংস্থা পিটিআইয়ের প্রতিবেদনে এমনই জানানো হয়েছে।

করোনাভাইরাসের নয়া প্রজাতি ওমিক্রনের বিরুদ্ধে টিকা কতটা কার্যকরী, তা নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যে ব্রিটেনে এক করোনা আক্রান্তের মৃত্যু হয়েছে। পিটিআইয়ের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ওমিক্রনের বিরুদ্ধে টিকার কার্যকারিতা নিয়ে পরীক্ষা চালান অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা। MedRxiv-তে প্রকাশিত গবেষণায় জানানো হয়েছে, করোনা টিকার দুটি ডোজ প্রাপকদের উপর পরীক্ষা চালিয়ে যে তথ্য মিলেছে, তা খুব একটা সুখকর নয়। ওই গবেষণায় ইঙ্গিত মিলেছে যে ওমিক্রনের প্রভাবে করোনা সংক্রমণের আরও একটি ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে। যাঁরা ইতিমধ্যে করোনা টিকা গ্রহণ করেছেন, তাঁরাও সংক্রমিত হতে পারেন। তবে আপাতত এমন কোনও প্রমাণ নেই যে টিকাগ্রহীতারা ওমিক্রনে আক্রান্ত হলে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ছেন বা তাঁদের হাসপাতালে ভরতি করতে হচ্ছে। অক্সফোর্ডের মেডিকেল সায়েন্সেস ডিভিশনের প্রধান তথা মুখ্য গবেষক গাভিন সেক্রেটনের দাবি, টিকাগ্রহীতার ক্ষেত্রে গুরুতর অসুস্থতার কোনও প্রমাণ না মিললেও সকলকেই অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে। কারণ আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লে আবারও স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর উপর চাপ পড়তে পারে।ট্রেন্ডিং স্টোরিজ

সম্প্রতি ব্রিটিশ স্বাস্থ্য সুরক্ষা এজেন্সির তরফে যে তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে, তার সঙ্গে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার মিল আছে। ব্রিটিশ স্বাস্থ্য সুরক্ষা এজেন্সির যে তথ্যে দাবি করা হয়, ডেল্টার তুলনায় ওমিক্রনের ক্ষেত্রে অ্যাস্ট্রোজেনেকা এবং ফাইজারের করোনাভাইরাস টিকার কার্যকারিতা কম। তবে তৃতীয় ডোজ নিলে সেই কার্যকারিতা বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে দাবি করেছেন গবেষকরা। অ্ সেক্রেটনের দাবি, যাঁরা টিকা তৈরি করছেন, তাঁরা এই তথ্যের ফলে লাভবান হবেন। কীভাবে নিজেদের জনসংখ্যাকে সুরক্ষা প্রদান করা যায়, সে বিষয়ে উপায় মিলবে। সেইসঙ্গে বুস্টার ডোজের প্রয়োজন আছে কিনা, তাও বোঝা যাবে।

তারইমধ্যে গবেষকরা জানিয়েছে, যে তথ্য মিলেছে, তা গুরুত্বপূর্ণ হলেও সেটাই শিরোধার্য নয়। এটা পুরো ছবির একটা অংশ মাত্র। অক্সফোর্ডের অধ্যাপক ম্যাথু স্নেপ জানান, তৃতীয় ডোজ বা বুস্টারের প্রভাবের বিষয়ে পরীক্ষা করা হয়নি। যা উল্লেখজনকভাবে অ্যান্টিবডির পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় এবং ওমিক্রনের বিরুদ্ধে কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.