ফার্স্টপোস্ট এর সমীক্ষা অনুযায়ী, রাহুল গান্ধীকে ছুঁড়ে ফেলে দেশের ৬৩ শতাংশ মানুষই নরেন্দ্র মোদীকে আবার প্রধানমন্ত্রী বানাতে চায়

এইবারের লোকসভা নির্বাচন সমস্ত দলই বিজেপিকে আটকানোর জন্য সবরকম প্রয়াস চালাচ্ছে। মহাজোট আর কংগ্রেস মিলে এবার নরেন্দ্র মোদীকে গদি চ্যুত করতে চাইছে। কিন্তু এরই মধ্যে ফার্স্ট পোস্ট ট্রাস্ট এর সমীক্ষায় জনতার মুড অন্যরকম বলছে। ফার্স্ট পোস্ট ট্রাস্ট এর ওই সমীক্ষায় দেশের ৬৩.৪ শতাংশ মানুষই চাইছে আবার নরেন্দ্র মোদী ক্ষমতায় আসুক, আর উনিই দেশের প্রধানমন্ত্রী হোক।

ফার্স্ট পোস্ট ট্রাস্ট এই সমীক্ষা ২রা মার্চ থেকে ২২ মার্চের মধ্যে ৩০ রাজ্যের ৩১০০০ এর বেশি মানুষের সাথে কথাবার্তা বলে প্রকাশিত করেছে। প্রধানমন্ত্রীর দৌড়ে নরেন্দ্র মোদীর পর দ্বিতীয় স্থানে আছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। কিন্তু জনপ্রিয়তার নিরিখে রাহুল গান্ধী নরেন্দ্র মোদীর থেকে অনেক অনেক পিছিয়ে।

দেশের মাত্র ১৬.১ শতাংশ মানুশ চাইছে দেশে রাহুল গান্ধী প্রধানমন্ত্রী হোক। মমতা ব্যানার্জীকে মাত্র ৩.৪ শতাংশ মানুষই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চাইছে। বহুজন সমাজ পার্টির সুপ্রিমো মায়াবতীকে ২.২ শতাংশ মানুষ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে চান। আর প্রিয়াঙ্কা ভঢড়া কে দেশের ১.৫ শতাংশ মানুষ প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসাতে চায়।

এই বার লোকসভা নির্বাচনে দেশের সুরক্ষাকে বিশেষ করে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। পুলওয়ামায় সিআরপিএফ এর কনভয়ে জঙ্গি হামলার পর ভারতীয় বায়ুসেনা পাকিস্তানে ঢুকে জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দিয়ে এসেছিল। আর এই ঘটনার পর থেকেই মানুষ সেনার উপর আরও বেশি করা ভরসা করা শুরু করেছে। ফার্স্ট পোস্ট ট্রাস্ট এর সমীক্ষা অনুযায়ী দেশের জনতা সবথেকে বেশি যদি কারও উপর ভরসা করে, সেটা আমদের ভারতীয় সেনা।

সমীক্ষা অনুযায়ী দেশের ৬০.১ শতাংশ মানুষ সেনার উপর চোখ বন্ধ করে ভরসা করে। আর দেশের ১৩.১ শতাংশ মানুষ সেনার উপর ভরসা করে, কিন্তু বেশি না। ভরসার দিক থেকে দেশের মানুষ সেনার পর নরেন্দ্র মোদীকেই স্থান দিয়েছে।

ফার্স্ট পোস্ট ট্রাস্ট এর সমীক্ষা অনুযায়ী দেশের ৫১.৭ শতাংশ মানুষ বাকি নেতাদের থেকে নরেন্দ্র মোদীকেই বেশি ভরসা করে। আর ১৭.১ শতাংশ মানুষ নরেন্দ্র মোদীকে ভরসা করে, কিন্তু বেশি না। দেশের জনতা তৃতীয় স্থানে সুপ্রিম কোর্টকে রেখেছে। সমীক্ষা অনুযায়ী দেশের ৪৮.৯ শতাংশ মানুষ সুপ্রিম কোর্টের উপর ভরসা করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.