নৌকা বোঝাই করে পাকিস্তান থেকে মাদক আসছিল গুজরাটে। মাঝ সমুদ্রেই হাতে নাতে পাকড়াও করল গুজরাট পুলিশের অ্যান্টি টেররিস্ট স্কোয়াড (এটিএস) এবং উপকূলরক্ষী বাহিনী। উদ্ধার হলো ১০০ কেজি হেরোইন যার বাজার মূল্য প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। পুলিশ জানিয়েছে, মাদক-সহ গ্রেফতার করা হয়েছে ন’জন ইরানি যুবককে। তাদের জেরা করা শুরু হয়েছে।

ঘটনা বুধবার সকালের। এটিএস সূত্রে খবর, নৌকাটি পাকিস্তানের। হামিদ মালিক নামে এক যুবক এই মাদক পাচারের পাণ্ডা। সেও ছিল নৌকাতে। তদন্তকারীদের কথায়, নৌকাটি পাকিস্তানের গ্বাদর বন্দর থেকে ছাড়ে। অনুমান সেখান থেকেই মাদক বোঝাই করে সেটি ভারতে আসছিল।

উপকূল রক্ষী বাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে, ওই পণ্যবাহী নৌকাটি গত কয়েক দিন ধরেই তাদের নজরবন্দি ছিল। গোপন সূত্রে খবর পেয়েই নৌকাটির উপর নজর রাখা হয়। এ দিন সেটির পথ আটকায় উপকূলরক্ষী বাহিনীর জাহাজ। তল্লাশি চালাতেই প্লাস্টিকের ছোট ছোট প্যাকেটে মোড়া প্রায় ১০০ কেজি হেরোইন উদ্ধার হয়।

ঘটনার যৌথ তদন্ত করছে উপকূলরক্ষী বাহিনী, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা ব্যুরো, পুলিশ, শুল্ক, নৌসেনা-সহ বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সংস্থা। ইরান থেকেও এর আগেও একাধিক বার মাদক বোঝাই নৌকা, জাহাজ আটক করেছে উপকূল রক্ষী। ২০১৭ সালে ১৫০০ কেজি হেরোইন-সহ আটক করা হয় ইরানের একটি জাহাজকে। সেটি গুজরাটের আলংয়ে যাচ্ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.